32 C
Kolkata
Thursday, September 23, 2021
Home জাতীয় খবর মহামারীতে অনাথ সন্তানদের দায়িত্ব নেবে রাজ্য, প্রতিমাসে দেবে ৩ হাজার টাকা

মহামারীতে অনাথ সন্তানদের দায়িত্ব নেবে রাজ্য, প্রতিমাসে দেবে ৩ হাজার টাকা

নয়াদিল্লি: করোনা নামক মারণ ভাইরাস সমস্ত কিছু ধ্বংস করার সঙ্গে সঙ্গে ভারতের বহু শিশুকে অনাথ করেছে। বহু শিশু রয়েছে যাদের বাবা-মাকে কেড়ে নিয়েছে করোনা। বাবা-মা সহ পরিবারকে হারিয়ে এখন অথৈ জলে রয়েছে অনেকেই। তাদেরই সাহাজ্যের জন্য এবার এগিয়ে এল উত্তরাখন্ড সরকার। উত্তরাখণ্ডের মুখ্যমন্ত্রী বুধবার মন্ত্রিসভায় ঘোষণা করেছেন যে তাঁদের সরকার উত্তরাখন্ড রাজ্যের যে সমস্ত শিশুরা করোনা মহামারীর কারণে অনাথ হয়েছে তাঁদের দায়িত্ব নেবে।

- Advertisement -

সেই কারণে উত্তরাখণ্ড সরকার “বাৎসল্য যোজনার” অনুমোদনের জন্য অনুমতি দিয়েছে। এই যোজনার লক্ষ্য হল যে সমস্ত সন্তান তাদের বাবা-মা বা তাদের পরিবারের উপার্জনপ্রাপ্ত সদস্যকে করোনা মহামারীতে হারিয়েছে তাদের সবরকম ভাবে সরকারের পক্ষ থেকে সহায়তা করা।  ‘বাৎসল্য যোজনার’ আওতায় বলা হয়েছে অনাথ হওয়া বাচ্ছাদের প্রতি মাসে ৩ হাজার টাকা করে দিয়ে তাদের দায়িত্ব সরকার নেবে। আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি, রাজ্য সরকার ২১ বছর বয়স হওয়ার আগে পর্যন্ত সেই সমস্ত অনাথ বাচ্ছাদের বিনামূল্যে শিক্ষা, রেশন এবং স্বাস্থ্য পরিষেবার সুবিধা প্রদান করবে।

জাতীয় শিশু অধিকার কমিশন (NCPCR) সোমবার সুপ্রিম কোর্টে দায়ের করা একটি হলফনামায় জানিয়েছে যে ২০২০ সালের ১ এপ্রিল থেকে চলতি বছর অর্থাৎ ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত ভারতে ৩০ হাজার ৭১ জন শিশু অনাথ হয়েছে, পিতা-মাতাকে হারিয়েছে বা তাঁদের ছেড়ে চলে যাওয়া হয়েছে। কমিশনের দেওয়া তথ্যে জানানো হয়েছে দেশ করোনার দুটি ঢেউয়ের সঙ্গে লড়াইয়ের সময় মোট ২৬ হাজার ১৭৬ জন শিশু তাঁদের পিতা-মাতাকে হারিয়েছে, ৩ হাজার ৬১২ জন শিশু অনাথ হয়েছে ও এবং ২৭৪ জন শিশুকে ফেলে রেখে চলে যাওয়া হয়েছে। এই সমস্ত ঘটনার বেশীটাই হয়েছে মহামারীর কারণেই।

- Advertisement -

কমিশন শীর্ষ আদালতকে জানিয়েছে যে ৩০,০৭১ জন শিশুর “যত্ন ও সুরক্ষার প্রয়োজন”। যাদের মধ্যে মধ্যে ১৫,৬২০ জন ছেলে, ১৪,৪৪৭ জন মেয়ে এবং চারজন তৃতীয় লিঙ্গের। এই সমস্ত শিশুদের মধ্যে ৮ থেকে ১৩ বছর বয়সীদের সংখ্যা বেশী ১১ হাজার ৮১৫ জন। এই সমস্ত ৪ থেকে ৭ বছর বয়সী রয়েছে ৫ হাজার ১০৭ জন। শীর্ষ আদালত কর্তৃক গৃহীত প্রতিবেদনে এনসিপিআরসিআর জানিয়েছে যে, অন্যান্য রাজ্যগুলিতে শিশুরা সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তার মধ্যে রয়েছে উত্তরপ্রদেশ (৩,১৭২), রাজস্থান (২,৪৮২), হরিয়ানা (২,৪৩৮), মধ্যপ্রদেশ (২,২৪৩), অন্ধ্রপ্রদেশ (২,০৮৯), কেরল (২,০০২), বিহার (১,৬৩৪) এবং ওড়িশা (১,০৭৩)।

- Advertisement -

সপ্তাহের সবচেয়ে জনপ্রিয় সংবাদ

নুসরত নয়, যশ বিয়ে করলেন মনের মানুষকে- ভাইরাল ভিডিও

অর্পিতা দাস: গতকাল প্রথমবার যশ দাশগুপ্তর সঙ্গে সিঁদুর পরে প্রকাশ্যে এসেছেন নুসরত জাহান। তবে এর মধ্যেই আবার অন্য কাউকে সিঁদুর পরালেন যশ, কে সেই...

আবারও লাল-হলুদ জার্সিতে খেলবেন ব্রাইট, দলবদলের বাজারে জোর জল্পনা

খাস খবর ডেস্ক: প্রথম দিকে ক্লাব ইনভেস্টর তর্জায় আইএসএল খেলা নিয়ে আশঙ্কা ছিল ইস্টবেঙ্গল। সেই সব পিছনে ফেলে এই বছর ভালোই দল গুছিয়েছে এসসি...

টাকার লোভে স্বামীর সঙ্গে কিশোরীদের সঙ্গমে বাধ্য করেন স্ত্রী

খাস খবর ডেস্ক: উচ্চ পদস্থ চাকরি করেন স্বামী। সরকারি দফতরের পদস্থ আধিকারিক। সেই ব্যক্তির স্ত্রী টাকার লোভে স্বামীর বিছানায় পাঠায় অন্য মহিলা। যাদের সকলের...

বিশ্বকর্মা পুজোয় সিঁদুর পরে যশ এর সঙ্গে নুসরত, বিয়ে নিয়ে গুঞ্জন

এন্টারটেইনমেন্ট ডেস্ক: কিছুদিন আগেই অভিনেতা যশ দাশগুপ্ত কে নিজের পুত্র সন্তানের বাবার পরিচয় দিয়েছেন অভিনেত্রী সাংসদ নুসরত জাহান। তবে এবার কি আরও এক নতুন...

খবর এই মুহূর্তে

রাম না জন্মাতেই রামায়ণের কাহিনী: ভ্যাকসিন না নিয়েও ভ্যাকসিনেশনের মেসেজ, চমকে উঠলেন ব্যক্তি

খাস খবর ডেস্ক: ভ্যাকসিন প্রক্রিয়া শুরু হওয়া থেকেই বারবার প্রকাশ্যে এসেছে ভ্যাকসিন নিয়ে হয়রানির খবর। এবার হয়রানির শিকার হলেন এক নদিয়ার এক ব্যক্তি। ভ্যাকসিনের...

“এটা কলকাতা লিগ নয়”, হারের পর হাবাসের পাশে অরিন্দম

খাস খবর ডেস্ক: এএফসি কাপ ইন্টার জোনাল সেমিফাইনালে এটিকে মোহনবাগানের লজ্জার হার। এএফসি ইন্টার-জোনাল সেমিফাইনালে নাসাফ এফসির কাছে ০-৬ হেরে বিদায় নিতে হয়েছে এটিকে...

সমাপ্ত সরকারি বাস ডিপোর নির্মাণ কাজ, উদ্বোধন না হওয়ায় বিক্ষোভ বাসিন্দাদের

চাঁচল: ছয়মাস হয়ে গিয়েছে শেষ হয়েছে নির্মাণ কাজ। তারপরেও তালা বন্দি অবস্থায় পড়ে রয়েছে উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার বাস ডিপো। আর এই নিয়েই ক্ষোভ...

জলমগ্ন নিউটাউনে চলছে জোরকদমে ড্রেনেজের কাজ

নিউটাউন: একটানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন নিউটাউন সহ তার পার্শ্ববর্তী এলাকা। বিশেষ করে নিউটাউনের অ্যাকশন এরিয়া থ্রির বিস্তীর্ণ এলাকা এখনও জলমগ্ন। সাপুরজি আবাসন চত্বর থেকে এখনও...