উদয়পুরের খুনিদের কি নির্দেশিকা দিয়েছিল পাক হ্যান্ডলার, ভয়ঙ্কর তথ্য সামনে আনল NIA

0
17

জয়পুর: রাজস্থানের উদয়পুর কাণ্ডের তদন্তভার হাতে তুলে নিয়েছে জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা (NIA)। হেফাজতে নিয়েছে কানইয়া লাল খুনে মূল দুই অভিযুক্ত মহম্মদ রিয়াজ এবং ঘৌস মহম্মদকে। তাদের জেরা করতেই উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। সম্প্রতি যে তথ্য সামনে এসেছে তা চোখ কপালে তুলেছে দুঁদে কর্তাদের। নূপুর শর্মার মন্তব্যকে কেন্দ্র করে পাকিস্তান-ভিত্তিক হ্যান্ডলাররা কি করার চেষ্টা করছিল সেটাই জানতে পেরেছে গোয়েন্দারা।

আজ শনিবার সকালে, এনআইএ-র একটি দল রাজস্থানের আজমিরের উচ্চ নিরাপত্তায় মোড়া কারাগারে পৌঁছে দুই অভিযুক্তের হেফাজতে নেয়। তাদের এখন কড়া নিরাপত্তার মধ্যে জয়পুরে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তার মধ্যেই গোয়েন্দা সূত্র সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছে যে মহম্মদ রিয়াজ এবং ঘৌস মহম্মদকে পাকিস্তান-ভিত্তিক হ্যান্ডলার সালমান হায়দার এবং আবু ইব্রাহিম প্ররোচিত করেছিল ভারতে আরও বড় সন্ত্রাসবাদী আক্রমণের জন্য। সূত্রের খবর উদয়পুরের দর্জি খুনে অভিযুক্ত দুই যুবক ন্ত্রাসী হামলা চালানোর জন্য আরডিএক্স-এর মতো বিস্ফোরকের ব্যবস্থা করার চেষ্টা করেছিলেন বলে অভিযোগ রয়েছে। এমনকি দুজনেই জেরার মুখে স্বীকার করেছে যে তারা ভারতে “বড় কিছু করার” বিষয়ে পাক হ্যান্ডলারদের সঙ্গে কথা বলেছে।

- Advertisement -

আরও পড়ুন- “সুপ্রিম কোর্ট কি বলেছে বিজেপি দেখুক” নুপুর শর্মা প্রসঙ্গে মন্তব্য ওয়াইসির 

গত মঙ্গলবার উদয়পুরের ঘটনা গোটা দেশকে নাড়িয়ে দিয়েছিল। দর্জি কানহাইয়া লালের শিরশ্ছেদ করে সেই ভয়ঙ্কর ভিডিও বানিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল করেছিল অভিযুক্তরা। অপরাধের কয়েক ঘণ্টা পর অভিযুক্ত দুজনকেই গ্রেফতার করা হয়। তার পরেই জেরায় উঠে আসছে বহু তথ্য। খুনিরা জানিয়েছে কেবল কানহাইয়া নয় নুপুর শর্মাকে সমর্থন করার জন্য আরও এক ব্যক্তিকে খুন করার পরিকল্পনা ছিল তাদের। ওয়াকিবহল মহল বলছে বিজেপি নেত্রীর নবীকে নিয়ে করা মন্তব্য ভারতের জন্য বিপদজনক হয়ে উঠেছে। এমনকি সুপ্রিম কোর্টও এর জন্য বিজেপি নেত্রীকে তীব্র ভর্ৎসনা করেছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রকাশ্যে ক্ষমা চাওয়ার কথাও বলেছে শীর্ষ আদালত।