বাই সাইকেলে চড়ে সমগ্র দেশ ভ্রমণ পার্বত্য রাজ্যের ছেলের

0
84

বিক্রম কর্মকার, ত্রিপুরা: নিজের একটি বাইসাইকেল নিয়ে জোরে বেরিয়েছেন দেশের এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। হিমালয় পাহাড় থেকে শুরু করে বঙ্গোপসাগরের উপকূলের একাধিক এলাকায় দাগ কেটেছেন বাই সাইকেল চড়েই।

বহি:রাজ্যের বিভিন্ন বাইসাইকেল রাইটিং সংস্থাগুলি থেকে এই ধরনের পদক্ষেপ আগেই লক্ষ্য করা গিয়েছিল। তবে এই দেশ ভ্রমণের স্বপ্ন দেখে আবার সেই স্বপ্ন পূরণ করা একেবারেই চারটিখানি কথা নয়। কিন্তু ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলার চন্দ্রপুরের বাসিন্দা বাপি দেবনাথ তা খুব সফলতার সহিত করে দেখিয়েছেন।

জানা গিয়েছে, চলতি বছরের জুলাই মাসে যাত্রা শুরু করেন ত্রিপুরার বাসিন্দা বাপি। এরপর কলকাতা হয়ে দক্ষিণ ভারতের চেন্নাই, ব্যাঙ্গালোর এবং সেখান থেকে সোজা লাদাখ জম্মু-কাশ্মীর এককথায় সমগ্রদেশের মুখে তার সাইকেলের চাকার দাগ কেটেছেন বাপি দেবনাথ। তার সঙ্গে রাজ্যের নাম গর্বের সহিত প্রচার করেছেন সমস্ত দেশে।

তিন মাসের এই গৌরবময় অধ্যায় পার করে শেষ পর্যন্ত রাজ্যের বুকে পা রাখলেন বাপি, আর পা রেখেই সোজা চললেন মা ত্রিপুরেশ্বরীর আশীর্বাদ নিতে সঙ্গী সেই বাইসাইকেল। রোমাঞ্চকর যাত্রার বিভিন্ন প্রাসঙ্গিকতা নিয়ে তিনি একাধিক বক্তব্য জানিয়েছেন। দক্ষিণ ভারতের মাতৃভাষার প্রচার করেছেন। কিভাবে রাজ্যের উপজাতি অংশের মানুষের চিরাচরিত পোশাকের প্রশংসা শুনেছেন দেশের মানুষের মুখে। আবার কিভাবে কাশ্মীরের দুর্গম হিমালয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন তার সম্পূর্ণ অভিজ্ঞতা তুলে ধরেছেন বাপি দেবনাথ।

বাপি দেবনাথ বলেছেন, “আমরা চাইলেই আমাদের স্বপ্ন পূরণ করতে পারব। কোন শক্তি আমাদের আটকাতে পারবে না। আমার এই পুরো রাইট টা আমি আমার বাবাকে উৎসর্গ করলাম। আমার খুব ভালো লাগছে, কারণ গোটা দেশে ত্রিপুরায় নাম উজ্জ্বল করতে পেরেছি।”

রাজ্যে সাইকেলিং এর জন্য সরকারি বা বেসরকারি কোন প্রকার সহযোগিতা না থাকলেও নিজস্ব উদ্যোগে এই কৃতিত্ব অর্জন করেছেন বাপি। আর তার এই যাত্রায় তিনি পরিবেশের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য বন ধ্বংসের বিরুদ্ধে প্ল্যাকার্ড লাগিয়েছেন তার সঙ্গে। করোনার সঙ্গে দেশের যুদ্ধকেও তিনি দৃঢ়তার সহিত উদযাপন করেছেন তার এই অনন্য যাত্রায়।

বাপি আরও জানিয়েছেন, আগামী দিনের সরকারি সহযোগিতা পেলে সাইকেলিং -এ বিশ্ব রেকর্ড করতে চান। তিনি ছয় হাজার কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে এই অনন্য নজির গড়তে চান। পাশাপাশি বাপি দেবনাথের এই অনন্য কৃতিত্ব অর্জন করে সমগ্র বিশ্বে রাজ্যের নাম উজ্জ্বল করছে।