মকর সংক্রান্তিতে সুস্বাদু পিঠের গন্ধে ম ম করছে গৃহস্থের বাড়ি

0
156

আগরতলা: সময় যতই এগিয়ে যাক, যতই পিত্‌জা-বার্গার বাজার দখল করুক, পিঠে-পুলি আছে সেই পিঠে-পুলিতেই। বাঙালিদের বারো মাসে তেরো পার্বণের মধ্যে অন্যতম হল উৎসব বা পৌষ পার্বণ। এই উৎসবকে কেন্দ্র করে বাঙালিদের ঘরে ঘরে চলে পিঠে পুলির আয়োজন। সেইরকমই মকর সংক্রান্তি উপলক্ষে ছোট্ট পার্বত্য ত্রিপুরা রাজ্যের প্রত্যেক গৃহস্থের বাড়িতে তৈরি হচ্ছে বিভিন্ন ধরনের সুস্বাদু পিঠে-পুলি সঙ্গে বিভিন্ন ধরনের রান্না।

আরও পড়ুনঃ সংক্রমণকে তুড়ি মেরে রাতভর জঙ্গলমহলে পালিত হল টুসু পরব

- Advertisement -

মকর সংক্রান্তি এলেই পিঠে- পুলির স্বাদ মনে পড়ে যায়। ভুরিভোজ ছাড়া যে কোনও উৎসবই ফিকে হয়ে যায়। ঠাকুমার হাতের সরুচাকলি কিংবা সেদ্ধ পুলি আবার ঝোলা গুড় কিংবা দুধ পুলি। সঙ্গে পাটিসাপটা নারকেলের পুর দিয়ে অসাধারণ পিঠে-পুলি মানেই আদরের, স্নেহের আর ভালবাসার স্পর্শ। মকর সংক্রান্তির দিনে বাঙালি পরিবারে নানান ধরনের পিঠে পুলি তৈরি করা হয়।

পাশাপাশি, পৌষ সংক্রান্তিতে ত্রিপুরা রাজ্যের প্রত্যেকটি বাড়িতে বাড়িতে চলছে হরিনাম সংকীর্তন। তাছাড়াও এই দিনে হিন্দু ধর্মের লোকেরা সকাল সকাল দেশ, দশ ও সমাজের মঙ্গল কামনার্থে নগর হরিনাম সংকীর্তনে বের হয়। উদ্দেশ্য একটাই, সমাজের সকল স্তরের মানুষজনদের মঙ্গল কামনার্থে সুন্দর সুন্দর আলপনা আঁকা, বাঙালি গৃহস্থের উঠোনে ধূপ, পুষ্প দিয়ে প্রার্থনা করা। কথিত আছে, মকর সংক্রান্তিতে মহাভারতে পিতামহ ভীষ্ম শরশয্যা ইচ্ছামৃত্যু গ্রহণ করেছিলেন। তাই মকর সংক্রান্তির এই দিনটিতে হরিনাম সংকীর্তন করা হয়।

আরও পড়ুনঃ বলিউডি স্টাইলে মোবাইল চোরকে ধরলেন পুলিশ, ভাইরাল ভিডিও

প্রত্যেক বছর হিন্দুশাস্ত্র মোতাবেক আজকের এই দিনে প্রত্যেক এলাকার নবীন-প্রবীণ সকলে একত্রিত হয়ে হরিনাম সংকীর্তন এবং লুট নিতে বের হয়। এবছরও তার ব্যতিক্রম হয়নি। বর্তমান করোনা মহামারির তৃতীয় ঢেউ ওমিক্রণের প্রভাবে গোটা দেশ যখন বিপদগ্রস্ত তখন সেই পরিস্থিতিকে মান্যতা দিয়ে এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে হরিনাম সংকীর্তন এবং লুট নিতে বেড়িয়েছে উত্তর ত্রিপুরা জেলা পানিসাগর মহাকুমার অন্তর্গত জ্বলাবাসা এলাকার নবীন-প্রবীণ, কচিকাঁচা থেকে শুরু করে ‌উভয় অংশের মানুষজন।