যান্ত্রিক ত্রুটির জের, আজও চালু হল না আগরতলা-ঢাকা- কলকাতা বাস পরিষেবা

0
35
Agartala Dhaka Kolkata bus

আগরতলা: করোনা মহামারির জেরে বন্ধ ছিল পরিবহণ। স্বাভাবিক হয়েছে পরিস্থিতি। ছন্দে ফিরেছে জীবনযাত্রা। ধাপে ধাপে চালু হয়েছে ট্রেন, বাস, বিমান পরিষেবা। সেই মতো দীর্ঘ দুবছর বন্ধ থাকার পর আজ থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল আগরতলা ভায়া ঢাকা কলকাতা বাস পরিষেবা। কিন্তু যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে কারণে আজ সেই বাস পরিষেবা চালু হয়নি।

আরও পড়ুনঃ তীব্র বিদ্যুতের ঘাটতি, অন্ধকারে ডুবতে চলেছে রাজ্য : Power Crisis

বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে আগরতলার পুরনিগমের মেয়র দীপক মজুমদার বলেন, ‘আজ খুব একটা খুশির দিন ছিল ত্রিপুরা রাজ্যবাসীর কাছে এবং বাংলাদেশের কাছেও। বাংলাদেশের সঙ্গে ত্রিপুরা এবং ভারতবর্ষের একটা আর্থিক যোগাযোগ আছে। বাংলাদেশ খুব কাছের রাষ্ট্র, বাংলাদেশের সঙ্গে ত্রিপুরার সম্পর্ক সুদৃঢ়। আজকে আনুষ্ঠানিকভাবে পুনরায় আগরতলা-ঢাকা-কলকাতা বাস পরিষেবা চালু হওয়ার কথা ছিল কিন্তু যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে এই বাস পরিষেবা চালু হয়নি।’ এছাড়াও এদিনের সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, আগরতলাস্থিত বাংলাদেশ সহকারি হাইকমিশনার আরিফ মোহাম্মদ, ত্রিপুরা সড়ক পরিবহন নিগমের ম্যানেজিং ডিরেক্টর রাজেশ দাস সহ অন্যান্যরা।

আরও পড়ুনঃ ১২ বগির ট্রেন দাঁড়াতে অসুবিধা, বাড়ছে শিয়ালদহ স্টেশনের প্ল্যাটফর্মের দৈর্ঘ্য

২০০৩ সালে চালু হয়েছিল আগরতলা-ঢাকা এই বাস পরিষেবা। তারপর ২০১৫ সালে আগরতলা- কলকাতা ভায়া ঢাকা বাস পরিষেবা শুরু হয়েছিল। মহামারির কারনে কিছুদিন বাস পরিষেবা বন্ধ ছিল। ২০২০ সালে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল বেসরকারিভাবে এই বাস পরিষেবাগুলি চালু করা হবে। এরজন্য ২টো বাসও তৈরি ছিল, কিন্তু কোভিডের কারনে হয়নি। আজকে আনুষ্ঠানিকভাবে আগরতলা- ঢাকা- কলকাতা বাস পরিষেবা চালু হওয়ার কথা থাকলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে সেটা চালু হয়নি। ত্রিপুরা সরকার ও বাংলাদেশ সরকার খুব আগ্রহী ছিল এই বাস পরিষেবা নিয়ে। তবে, খুব শীঘ্রই আগরতলা- ঢাকা-কলকাতা বাস পরিষেবা চালু হবে বলে জানিয়েছেন আগরতলা পুর নিগমের মেয়র দীপক মজুমদার।

ত্রিপুরার রাজধানী আগরতলা থেকে রওনা হয়ে ঢাকা হয়ে বাসটির কলকাতা পৌঁছতে আনুমানিক সময় লাগে ২০ ঘণ্টা ৷ প্রায় ৫০০ কিমি পথ অতিক্রম করে এই বাসটি। ত্রিপুরার কৃষ্ণনগরে সকাল দশটায় বাসটি ছাড়বে। এই বাসে মোট সিটের সংখ্যা ৪০ টি। ইতিমধ্যেই যাত্রীদের টিকিট ও সিট রিজার্ভেশন শুরু হয়ে গিয়েছে। টিকিট কাটতে গেলে বৈধ পাসপোর্ট ট্রানজিট ভিসা ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রয়োজন হবে। যাত্রী পিছু এই বাসে যাতায়াতের খরচ করে ২,৩০০ টাকা । তবে শুক্রবার ছাড়া সপ্তাহে ছয় দিন এই পরিষেবা পাওয়া যাবে।