নতুন ভালোবাসার খোঁজ পেয়ে দুই সন্তানকে নিয়ে পলাতক মহিলা, পড়ে রইল ১৬ বছরের সংসার

0
913

আগরতলা: একসাথে জীবন কাটানোর অঙ্গীকার নিয়ে সংসার বাঁধা। কিন্তু নতুন ভালোবাসার খোঁজে সেই ১৬ বছরের সংসার, স্বামী, দুই সন্তান ফেলে পালালেন স্ত্রী। ঘটনাটি ঘটেছে ত্রিপুরায়।

ত্রিপুরার কমলাসাগর বিধানসভার সেকেরকোট পশ্চিম পাড়া এলাকার বাসিন্দা শুকলাল দাস (৩৯) ১৬ বছর আগরতলা হাপানিয়া ওএনজিসি-র কাঞ্চন পল্লী এলাকার স্বপ্না শীলের সঙ্গে সামাজিক ভাবেই বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়। তাদের দুই সন্তান।

শুকলাল দাসের অভিযোগ, প্রায় ১ বছর ধরে তার স্ত্রী স্বপ্নার আচার আচরণ সন্দেহজনক হতে থাকে। সারাদিন একজন যুবকের সাথে ফোনে বা মেসেজে কথা বলা লেগেই থাকতো। এমনকি স্বপ্নাকে সেকেরকোট এলাকাতেই সুখেন নামের এক যুবকের সাথে বেশ কয়েকবার দেখা গেছে। তার স্ত্রী অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়েছে এ কথা সন্দেহ করতে পারলে সংসারে শুরু হয় অশান্তি। শুকলাল দাস স্ত্রীয়ের মোবাইল ঘেঁটে সব জানতে পারেন এবং তাঁর সন্দেহ সত্যি প্রমাণিত হয়।

স্ত্রীয়ের অবৈধ সম্পর্কের কথা জানতে পেরে নিজের শাশুড়ি কে সমস্ত ঘটনা খুলে বলেন তিনি। কিন্তু মেয়ের চরিত্রে দাগ টানা হচ্ছে এই ভেবে জামাইয়ের কথায় কর্ণপাত করেন নি শিবানী শীল। তিনি আরও জানান, জুন মাসে আগরতলার একটি বেসরকারি হাসপাতালে কাজ করার নাম করে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। এর ১২ দিনের মাথায় আমতলী থানায় তার নামে একটি মিথ্যা মামলা করে। থানা থেকে তাকে দুই সন্তান সহ ডেকে পাঠানো হয়। সেখানে গেলে সন্তানদের স্ত্রীয়ের হাতে তুলে দেয় পুলিশ। এছাড়া, পালানোর সময় স্বামীর অজান্তেই নগদ প্রায় দেড় লক্ষ টাকা এবং দুই ভরি সোনার গয়না সঙ্গে করে নিয়ে যায় স্বপ্না।

তবে শুকলাল জানতে পারেন, সন্তানদের জোর করে নিয়ে যাওয়া হলেও তাদের স্কুল যেতে দিচ্ছে না। ফলে পড়াশোনার ক্ষতি হচ্ছে। এমত অবস্থায় এই ঘটনা এলাকার ক্লাবে জানানো হয়। কিন্তু ১ মাস কেটে গেলেও এখনও কোনও সুরাহা মেলেনি। অন্তত সন্তানদের কীভাবে নিজের কাছে ফেরানো যায় তা ভেবে উঠতে পারছেন না তিনি।