‘রাম রাজ্যের’ মানে ঠিক কি, মন্দির উদ্বোধনের দিন ঘোষণার পরই অমিত শাহকে কটাক্ষ কংগ্রেসের

0
58

নয়াদিল্লি: ২০১৯ সালে রাম মন্দির নির্মাণের পক্ষে রায় দেয় দেশের শীর্ষ আদালত। ২০২০ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর হাট ধরেই হয় ভূমিপুজো । তারপর থেকেই জোর কদমে চলছে রাম মন্দির নির্মাণের কাজ। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানিয়ে দিয়েছেন কবে হবে মন্দির উদ্বোধন। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অযোধ্যায় বহু প্রতীক্ষিত রাম মন্দির উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণা করার কয়েকদিন পর কর্ণাটক কংগ্রেসের মুখপাত্র প্রিয়াঙ্ক খার্গ শাহ এবং কেন্দ্রীয় সরকারের তীব্র নিন্দা করেছেন। জানিয়েছেন রাম রাজ্যের আসল মানেটা ঠিক কি।

মন্দির উদ্বোধনের দিন ঘোষণায় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে কর্ণাটক কংগ্রেসের মুখপাত্র টুইট করে লিখেছেন, “আগামী বছরের ১ জানুয়ারির মধ্যে রাম মন্দির তৈরি হয়ে যাবে জেনে ভালো লাগছে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে শুধুমাত্র মন্দিরের জন্য নয়, সরকারি চাকরির শূন্যপদ পূরণ এবং অর্থনীতিকে ট্র্যাকে নিয়ে যাওয়ার জন্য সময়সীমা নির্ধারণ করার জন্য অনুরোধ করছি। সর্বোপরি রাম রাজ্য মানেই সকলের শান্তি ও সমৃদ্ধি।” এটাই প্রথম নয় এর আগে কংগ্রেসের সভাপতি মল্লিকার্জুন খাড়গেও রাম মন্দিরের উদ্বোধনের তারিখ ঘোষণা করার পরে শাহকে আক্রমণ করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন, “আপনি একজন রাজনীতিবিদ, পুজারি (পুরোহিত) নন। আপনার দায়িত্ব হল দেশকে রক্ষা করা, কৃষকদের ন্যূনতম সমর্থন মূল্য প্রদান করা এবং মন্দির উদ্বোধনের সময় ঘোষণা না করা।” খড়গেও বিজেপির নেতৃত্বকে কটাক্ষ করে বলেছেন, “তারা সবচেয়ে বড় মিথ্যাবাদী। তারা দুই কোটি চাকরির প্রতিশ্রুতি দিয়ে ক্ষমতায় এসেছিল কিন্তু কেউ চাকরি পায়নি। তারা ১৫ লাখ টাকা দিতে ব্যর্থ হয়েছে।”

- Advertisement -

আরও পড়ুন- ভূমিধসে তলিয়ে যেতে চলেছে উত্তরাখণ্ডের জোশীমঠ, উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠক ডাকল প্রধানমন্ত্রীর দফতর

উল্লেখ্য, রাজনৈতিক মহল বলছে ২০২৪ সালে রাম মন্দির উদ্বোধনে পিছনে বড় কারণ রয়েছে। কারণ ওই বছরেই রয়েছে লোকসভা নির্বাচন যেটি বিজেপির কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। অনেকেই বলছেন ভোটবাক্স ভরাতে রাম মন্দির দিয়ে হিন্দুত্বের তাস খেলতে চাইছে বিজেপি। সব মিলিয়ে রাম মন্দিরের উদ্বোধন নিয়েও নতুন রাজনীতি শুরু হয়েছে।