সন্ত্রাস দমনে পুলিশি তৎপরতা, গ্রেফতার ৫০-এরও বেশি

0
33

নয়াদিল্লি: সন্ত্রাসবাদ এবং নাশকতার সঙ্গে যোগসূত্র মেলায় কর্ণাটকের হুবলি থেকে গ্রেফতার ৫০ এরও বেশি। দেশদ্রোহিতা এবং ধর্মীয় বিদ্বেষ ছড়ানোর সাথে যোগসূত্র মেলায় পপুলার ফ্রন্ট অব ইন্ডিয়ার কর্মীদের তল্লাশি এবং ধরপাকড় শুরু করেছে জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থা। দেশজুড়ে ইতিমধ্যেই প্রায় ১০৫ জনকে আটক করেছে NIA।

এই গ্রেফতারির বিরুদ্ধে কর্ণাটকের হুবলিতে প্রতিবাদ জানাচ্ছিল পপুলার ফ্রন্টের সদস্য-কর্মীরা। NIA এবং বিজেপির বিরুদ্ধে শ্লোগান তুলে হুবলির ডাক্কাপা এলাকায় প্রতিবাদ জানাচ্ছিল তারা। সেইসযয় প্রায় ৫০ জন পপুলার ফ্রন্টের কর্মীদের আটক করা হয়। পুলিশ জানিয়েছে, রাস্তা বন্ধ করে বিক্ষোভ দেখাচ্ছিল তারা। সেই কারণে কর্মীদের আটক করেছে পুলিশ।

- Advertisement -

উল্লেখ্য, পপুলার ফ্রন্ট অফ ইন্ডিয়ার (PFI) সঙ্গে নাশকতা যোগ থাকার সন্দেহেই  পশ্চিমবঙ্গ, দিল্লি, উত্তরপ্রদেশ, তামিলনাড়ু কর্ণাটক সহ দশটি রাজ্য চলছে তল্লাশি। PFI-এর নেতা কর্মী মিলিয়ে প্রায়  ১০০  জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একযোগে তল্লাশি চালাচ্ছে এনআইএ ও ইডি। এই তল্লাশিকে এখন পর্যন্ত “সবচেয়ে বড়” ক্র্যাকডাউন বলে মনে করা হচ্ছে। দেশজুড়ে সন্ত্রাসবাদে অর্থায়ন, প্রশিক্ষণ শিবির সংগঠিত করা এবং চরমপন্থী গোষ্ঠীতে যোগদানের জন্য উস্কানোর অভিযোগে জড়িতদের বিরুদ্ধে অভিযান ও অনুসন্ধান চালানো হচ্ছে।  কলকাতায় জাতীয় তদন্তকারী সংস্থা এনআইএ তরফ থেকে এই তল্লাশি অভিযান চালানো হচ্ছে। কলকাতার পার্ক সার্কাসে শেখ মোক্তারের বাড়িতে তল্লাশি চালানো হয়েছে।

সর্বাধিক সংখ্যক গ্রেফতার করা হয়েছে কেরলে (২২), তারপরে মহারাষ্ট্র এবং কর্ণাটকে (প্রত্যেক জায়গায় ২০), অন্ধ্রপ্রদেশ (৫), আসাম (৯), দিল্লি (৩), মধ্যপ্রদেশ (৪), পুদুচেরি (৩), তামিল নাড়ু (১০), উত্তর প্রদেশ (৮) এবং রাজস্থান (২)। গ্রেফতারের বিরুদ্ধে তামিলনাড়ু এবং কর্ণাটকে PFI সদস্যরা বিক্ষোভ শুরু করেছে। পিএফআই এক বিবৃতিতে বলেছে,  “PFI-এর জাতীয়, রাজ্য এবং স্থানীয় নেতাদের বাড়িতে অভিযান চালানো হচ্ছে। রাজ্য কমিটির অফিসেও অভিযান চালানো হচ্ছে। আমরা ভিন্নমতের কণ্ঠকে স্তব্ধ করার জন্য এজেন্সিগুলিকে ব্যবহার করার জন্য ফ্যাসিবাদী শাসনের পদক্ষেপের তীব্র প্রতিবাদ জানাই।”