ফের মুসলিম সবজি বিক্রেতাকে হেনস্থা বিজেপি বিধায়কের

0
232

লখনউ: মুসলিম বিক্রেতার থেকে সবজি কিনতে নিষেধ করেছিলেন বিজেপি বিধায়ক সুরেশ তিওয়ারি। সেই নিয়ে বিতর্কের রেশ না কাটতেই ফের শিরোনানে অন্য এক বিজেপি বিধায়ক। আবারও সেই একই প্রকারের ঘটনা। ঘটনাস্থল আবারও সেই উত্তরপ্রদেশ।

নতুন করে বিতর্কে জড়িয়ে যাওয়া বিধায়ক হলেন বৃজ ভূষণ শরণ। পদ্মের প্রার্তী হয়েই তিনি বিধায়ক হয়েছিলেন। তাঁর বিরুদ্ধেই অভিযোগ উঠেছে এক মুসলিম সবজি বিক্রেতাকে হেনস্থা করার। এবং সেই হেনস্থার ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। যা থেকেই শুরু হয়েছে বিতর্ক।

- Advertisement -

ভাইরাল হওয়া সেই ভিডিও অনুসারে, এক ভ্যানে করে সবজি বিক্রি করতে আসা এক ব্যক্তিকে হেনস্থা করছেন বিধায়ক। প্রায় মারতে উদ্যত হচ্ছেন তিনি। সেই সঙ্গে ওই সবজি বিক্রেতাকে হুমকি দিচ্ছেন, ‘মুসলিম হয়ে নাম ভাড়িয়ে হিন্দু সেজে এই এলাকায় যেন আর না আসা হয়।’ মুসলিম হয়েও ওই সবজি বিক্রেতা নাকি হিন্দু নাম নিয়ে এলাকায় এলাকায় ঘুরে ঘুরে সবজি বিক্রি করছিল।

নিজের বিরুদ্ধে ওঠা এই অভিযোগ স্বীকার করে নিয়েছেন বিধায়ক বৃজ ভূষণ। তিনি বলেছেন, “হ্যাঁ, ভাইরাল হওয়া ভিডিও-তে আমিই ছিলাম। সে মিথ্যা কথা বলছিল তাই আমি ওই রকম ব্যবহার করতে বাধ্য হয়েছি। ওর নাম রেহমুদ্দিন কিন্তু রাজকুমার নাম নিয়ে এই এলাকায় এসে সবজি বিক্রি করছিল।”

যদিও শুধু নাম ভাড়িয়ে ব্যবসা করা ওই বিক্রেতাকে আক্রমণের প্রধাণ কারণ নয় বলে জানিয়েছেন বিধায়ক বৃজ ভূষণ। তিনি বলেছেন, “সবজি বিক্রি করতে এসেছে অথচ মুখে মাস্ক নেই, হাতে গ্লাভস নেই। এসব থেকে তো করোনা ছড়াতে পারে! আর আমরা সবাই জানি যে কানপুরে ১৬ জন এবং লখনউতে একজন সবজি বিক্রেতার শরীরে করোনা পজিটিভ পাওয়া গিয়েছে।”

এর আগে অন্য একটি ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তোলে। সেখানে দেখা যায়, বিজেপি বিধায়ক সুরেশ তিওয়ারি বলছেন, “একটা কথা মাথায় রাখবেন। আমি সবাইকে বলছি মুসলিমদের থেকে সবজি কেনার কোনও দরকার নেই।” এই ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর থেকেই সমালোচনার ঝড় ওঠে। কিন্তু তাতেও নির্বিকার ছিলেন সুরেশবাবু।

আর তাতেই বেশ অস্বস্তিতে পড়ে যায় গেরুয়া শিবির। তাই তড়িঘড়ি তাঁকে দল থেকে শোকজ করার সিদ্ধান্ত নেয় বিজেপি। সেই মতো তাঁকে নোটিশও পাঠানো হয়। সেই রেশ না কাটতেই ফের বিতর্কে জড়ালেন বিজেপি বিধায়ক।