অন্য সম্প্রদায়ের ছেলের সঙ্গে প্রেম, নিজের মেয়েকে খুন করল মা

0
35

খাস ডেস্ক: ভিন্ন সম্প্রদায়ে প্রেমের সম্পর্ক করেছিলেন যুবতী। সেই প্রেমের সম্পর্ক মানতে নারাজ তাঁর মা। এই সম্পর্কের কথা জানার পরেই বাড়িতে ডেকে পাঠান তাঁকে তাঁর মা। তারপরে নিজেদের সম্প্রদায়ের ছেলের সঙ্গে বিয়ের ঠিক করে ফেলেন তিনি। কিন্তু মায়ের ঠিক করা বিয়েতে রাজি হননি ওই যুবতী। অবশেষে বিয়েতে রাজি না হওয়ায় তাঁকে খুন(Murder) করল তাঁর মা। ঘটনাটি ঘটেছে তামিলনাড়ুর তিরুনেলভেলিতে।

আরও পড়ুন পুলিশের নজর এড়াতে হোটেলে ঠাঁই, রমরমিয়ে চলছিল ভুয়ো কল সেন্টারের কারবার

- Advertisement -

অরুণা নামের ওই নার্সি কোর্সের ছাত্রীর বয়স ১৯। তাঁর মা আরুমুগা কানি সিভালপেরি গ্রামের বাসিন্দা। পিচাই নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে বিয়ে হয় তাঁর। তাঁদের দুজনের একটিই কন্যাসন্তান। থেভার সম্প্রদায়ের অরুণা নাদার সম্প্রদায়ের এক যুবকের প্রেমে পড়েন। আর সেই সম্পর্কের কথা জানতেই বারিতে ডেকে পাঠান তাঁর মা। সম্পর্কের বিষয়ে আলোচনার জন্য তাঁকে ডেকে পাঠান তাঁর মা।

আরও পড়ুন কাতারে বান্ধবীকে চুম্বন করে শাস্তির মুখে পড়তে পারেন এই ফুটবলার

সেই সময়েই বাড়িতে এসে অরুণা দেখেন তাঁর মা ইতিমধ্যেই নিজেদের সম্প্রদায়ের একটি যুবকের সঙ্গে বিয়ের ঠিক করে দেন তাঁর মা। ২৩ নভেম্বর ছেলের বাড়ির লোকজন আসবে এবং তারপরে তাঁর বিয়ে হবে। এই নিয়ে মা ও মেয়ের মধ্যে ঝামেলাও বাঁধে। কিন্তু যার সঙ্গে বিয়ের ঠিক হয় তাঁকে অরুনা জানায় যে সে অন্য এক ছেলের সঙ্গে সম্পর্কে রয়েছে। তেই বিষয়ে তাঁর মা জানতে পেরেই তাঁর মেয়ের গলায় দড়ি পেঁচিয়ে খুন(Murder) করেন তিনি। এরপরে তিনি নিজে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। হেয়ার ড্রায়ার পাউডার খেয়ে আত্মত্যার চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু প্রতিবেশীরা এই বিষয়ে জানতে পেরে তাঁকে উদ্দার করে হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানেই এখন চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন ওই মহিলা। এই বিষয়ে সিভালাপেরি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এ বিষয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।