সীমান্ত লঙ্ঘনের কারণে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক “অস্বাভাবিক”: S Jaishankar

0
56
S Jaishankar

নয়াদিল্লি:  ২০২০ সালে গালওয়ানে সংঘর্ষের পর থেকে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক সেই অর্থে এখনও স্বাভাবিক নয়। সমস্যা সমাধানের জন্য একাধিকবার শীর্ষ সামরিক পর্যায়ে বৈঠক হয়েছে। কিন্তু তা সত্বেও লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখাবরাবর বেশ কিছু এলাকাজুড়ে সমস্যা রয়েই গিয়েছে। এই আবহেই বিদেশমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর জানিয়েছেন, ভারত নিশ্চিত করতে চায় যে সমস্ত দেশের সাথে তার সম্পর্ক সুষ্ঠু ভাবে বজায় রাখতে। তার পরেই বিদশমন্ত্রী উল্লেখ করেছেন,  সীমান্ত লঙ্ঘনের কারণে চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্ক “অস্বাভাবিক” ।

সকলের সঙ্গে সম্পর্ক ভারত ভালো রাখতে চাইলেও প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় “অস্বাভাবিক” আচরণের কারণে কিছুটা ভিন্ন বিভাগে পড়ে চিন। এমনটাই জানিয়েছেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী।  জয়শঙ্কর, যিনি ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রে তাঁর প্রথম  সফরে সান্তো ডোমিঙ্গোতে গিয়েছেন। সেখান থেকেই  তিনি আরও বলেছিলেন যে ভারত  সীমান্ত অঞ্চল জুড়ে সংযোগ, যোগাযোগ এবং সহযোগিতার নাটকীয় প্রসার দেখেছে। ডোমিনিকান রিপাবলিকের কূটনৈতিক স্কুলের কূটনৈতিক কর্পস এবং তরুণদের উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় তিনি শুক্রবার বলেন, পাকিস্তান অবশ্য আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদের পরিপ্রেক্ষিতে এর ব্যতিক্রম। বিদেশমন্ত্রী বলেছেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইউরোপ, রাশিয়া বা জাপান যাই হোক না কেন, আমরা নিশ্চিত করার চেষ্টা করছি যে এই সমস্ত বন্ধন একচেটিয়াতা না করেই এগিয়ে যায়। সীমানা বিরোধ এবং বর্তমানে আমাদের সম্পর্কের অস্বাভাবিক প্রকৃতির কারণে চিন কিছুটা ভিন্ন বিভাগে পড়ে। এটি তাদের দ্বারা সীমান্ত ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত চুক্তি লঙ্ঘনের ফলাফল।”

- Advertisement -

শুক্রবার জয়শঙ্কর আরও বলেছেন, “সমান্তরাল সময়সীমায় চিন ও ভারতের উত্থানও এর প্রতিযোগিতামূলক দিক ছাড়া নয়।  যখন অন্যান্য অঞ্চলে আফ্রিকা, প্রশান্ত মহাসাগরীয় বা লাতিন আমেরিকার জন্য বিড করা হয়, তখন যা ঘটছে তার বেশিরভাগই ভারতের সম্ভাব্য বিশ্ব পদচিহ্নের উত্থান হিসাবে ব্যাখ্যা করা যেতে পারে। অনেক ক্ষেত্রে, এটি ব্যবসা বা গতিশীলতার মতো স্বায়ত্তশাসিত শক্তির ফলাফল।” তিনি এটাও বলেছেন যে, ভারত সীমান্ত ব্যবস্থাপনা চুক্তি লঙ্ঘন করে পূর্ব লাদাখে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর চিনের বিপুল সংখ্যক সেনা মোতায়েন এবং তার আগ্রাসী আচরণের নিন্দা করে আসছে। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি ড্রাগন দাবি করেছিল যে, ভারত সীমান্ত চুক্তি লঙ্ঘন দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সম্পূর্ণ ভিত্তি “ক্ষয়” করেছে। তার পরেই চিনের এহেন মন্তব্যের কঠোর প্রতিক্রিয়া জানিয়েছিল ভারত। সেই প্রতিক্রিয়া দেওয়ার একদিন পরেই চিনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক শুক্রবার  জানিয়েছে সীমান্তের পরিস্থিতি “সাধারণত স্থিতিশীল”। তারপরেই ভারতের বিদেশমন্ত্রীর চিনকে নিয়ে নয়া মন্তব্য সামনে এসেছে।