১৬ বছর পার করলেই বিয়ে করতে পারবে মেয়েরা, বড় রায় হাই কোর্টের

0
45

চণ্ডীগড়: ১৬ বছর মানে নাবালিকা অর্থাৎ বিয়ের (Marry) বয়স হয়নি। যদি কোনও মেয়ে এই বয়সে করতে চায় তবে তা বড় অপরাধ হিসাবে গণ্য করা হয়। তবে আর চিন্তা নেই ১৬ বছর হলে করা যাবে বিয়ে। মেয়েদের বিয়ের বয়স নিয়ে বড় রায় দিয়েছে আদালত।

পাঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্ট জানিয়েছে যে ১৬ বছরের বেশি বয়সী একজন মেয়ের নিজের ইচ্ছায় বিয়ে করার ক্ষেত্রে আর কোনও বাধা থাকবে না। তবে সকলে নয় কেবল মুসলিম মেয়ে হলে তবেই এই বয়সে তাঁর পছন্দের ব্যক্তির সঙ্গে বিবাহের বন্ধনে আবদ্ধ হতে পারবেন। বিচারপতি জসজিৎ সিং বেদির বেঞ্চ একটি মুসলিম দম্পতির সুরক্ষার আবেদন নিষ্পত্তি করার সময় এই বড় আদেশ দিয়েছেন। যেখানে এক ২১ বছর বয়সী যুবক এবং একটি ১৬ বছর বয়সী মেয়ে বিয়ের পর তাঁদের পরিবারের সদস্যদের কাছ থেকে জীবন রক্ষা এবং স্বাধীনতার সুরক্ষার জন্য হাইকোর্টে বিচার চেয়ে আবেদন করেছিলেন। সেই আবেদনের শুনানিতেই এই বয়স নিয়ে রায় দিয়েছে আদালত। বেঞ্চ পাঠানকোটের সিনিয়র সুপারিনটেনডেন্ট অফ পুলিশকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়ে আবেদনটি নিষ্পত্তি করে।

- Advertisement -

আরও পড়ুন- ‘বাবা কি বুলডোজার’, যোগীরাজ্যে বুলডোজার চেপে বিয়ে করতে এলেন বর

আবেদনকারী ওই দম্পতির মতে, কিছুদিন আগে তারা প্রেমে পড়েন এবং বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। তাদের বিয়ে ২০২২ সালের ৮ জুন মুসলিম আচার ও অনুষ্ঠান অনুসারে সম্পন্ন হয়েছিল। কিন্তু মেয়েটির বয়স ১৬ বছর হওয়ার কারণে তাঁর পরিবাররে পক্ষ থেকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল। সেই হুমকি থেকে বাঁচতেই তাঁরা আদালতে আবেদন করেছিলেন। এই মামলার রায়ে বিচারপতি বেদি জানিয়েছেন, “আইনটি স্পষ্ট যে মুসলিম মেয়ের বিয়ে মুসলিম ব্যক্তিগত আইন দ্বারা পরিচালিত হয়। স্যার দিনশাহ ফারদুনজি মুল্লার ‘প্রিন্সিপলস অফ মোহামেডান ল’ বইয়ের ১৯৫ অনুচ্ছেদ অনুসারে, পিটিশন নং ২ ১৬ বছরের বেশি বয়সী (মেয়ে) ও পিটিশন নং ১ এ ২১ বছর বয়সী ছেলে তার পছন্দের ব্যক্তির সঙ্গে বিবাহের চুক্তিতে আবদ্ধ হতে সক্ষম৷  সুতরাং, উভয় আবেদনকারীই মুসলিম ব্যক্তিগত আইন দ্বারা পরিকল্পিত বিবাহযোগ্য। “