গরু পাচার মামলায় দিল্লিতে ইডির দফতরে তলব হুমায়ুন কবীরকে

0
43
Recruitment scam

নয়াদিল্লি: গরু পাচার মামলা(Cow Smuggling) নিয়ে রাজ্যে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য সামনে আসছে। রাজ্যের শাসকদলের ওপরও চলছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরদারি। এমনকি পশ্চিমবঙ্গের একাধিক পুলিশও রয়েছেন ইডির নজরে। ইতিমধ্যেই অনুব্রত মণ্ডল সহ তাঁর ঘনিষ্ঠদের একে একে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। এবার কানাঘুষো শোনা যাচ্ছে, প্রাক্তন IPS হুমায়ুন কবীর সহ বীরভূমের DIG পদমর্যাদার দুই আধিকারিককে দিল্লির ইডি দফতরে তলব করা হতে পারে। সূত্রের খবর অনুসারে, ৩ থেকে ৭ ডিসেম্বরের মধ্যে তাঁদের হাজিরা দিতে হতে পারে।

আরও পড়ুন “সন্ত্রাসবাদীদের শুভাকাঙ্ক্ষী”, বাটলা হাউস এনকাউন্টার নিয়ে কংগ্রেসকে জোরাল আক্রমণ মোদীর

- Advertisement -

অন্যদিকে অনুব্রত মণ্ডলকে নিয়ে ইডির তদন্ত জারি রয়েছে। এর মধ্যেই অনুব্রত ঘনিষ্ঠ সঞ্জীব মজুমদারকে তলব করেছে ইডি। বীরভূমের বেতাজ বাদশাহর ঘনিষ্ঠদের জেরা করা হচ্ছে। এর মধ্যেই জানা যায়, সঞ্জীব মজুমদার অনুব্রতর অ্যাকাউন্টে টাকা ট্রান্সফার করেছিলেন। এবার সেই টাকা কেন পাঠানো হয়েছিল এবং কত তাকা পাঠানো হয়েছিল তা নিয়েই তদন্তে নেমেছে ইডি।

প্রসঙ্গত, সিবিআইয়ের পাশাপাশি গরুপাচার মামলায়(Cow Smuggling) তৎপর ED! গত ১৭ নভেম্বর সকালেই অনুব্রতকে আসানসোল জেলে টানা ৫ ঘণ্টা জেরা করেন দিল্লির ইডি অফিসাররা। অনুব্রতকে জিজ্ঞাসাবাদ করায় নেতার কাছ থেকে সদুত্তর না মেলায় অনুব্রতকে গ্রেফতার করে ইডির আধিকারিকরা। এরপরই অনুব্রতকে দিল্লি নিয়ে যাওয়ার জন্য রাউস অ্যাভিনিউ আদালতে প্রোডাকশন ওয়ারেন্ট জারি করার আবেদন জানান আধিকারিকরা। কিন্তু রাউস অ্যাভিনিউ আদালতে ইডির আবেদনের শুনানি হওয়ার আগেই দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন অনুব্রত।

অন্যদিকে, দিল্লির যাত্রা আটকাতে মরিয়া অনুব্রত! আর তার ফলেই ইডির উদ্যোগ নষ্ট করতেই দিল্লি হাইকোর্টে পাল্টা মামলা করেছিলেন তিনি। আর সেই মামলার শুনানি ছিল শুক্রবার। তবে দিল্লির উদ্দেশ্যে যাত্রা করতে হয়নি তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলকে। কারণ মামলার শুরুতেই দিল্লি হাইকোর্টে ধাক্কা খায় ইডি। অর্থাৎ পিছিয়ে যায় অনুব্রত-মামলার শুনানি। পরবর্তী শুনানি ১ ডিসেম্বর বলে সূত্রের খবর।