উত্তর-পূর্বে কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপি যোগ দিয়েই এই নেতারা পেয়েছে বড় পদ

0
58

খাস ডেস্ক: শনিবার রাজ্যপালের কাছে পদত্যাগপত্র জমা দিয়ে রাজনৈতিক মহলকে অবাক করেছিলেন ত্রিপুরার  মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেব। এখানেই শেষ নয় সন্ধ্যার মধ্যেই রাজ্যের নতুন মুখ্যমন্ত্রীর নামও ঘোষণা করে বিজেপি হাইকমান্ড। যদিও ত্রিপুরা প্রথম নয় এর আগে উত্তরাখণ্ড, গুজরাট এবং কর্ণাটকে মুখ্যমন্ত্রী পদে পরিবর্তন দেখা গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী পদ পরিবর্তন তো হল কিন্তু জানেন কি উত্তর-পূর্বের রাজ্যে পরিবর্তিত মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে কাদের প্রাধান্য দিয়েছে বিজেপি। উত্তর-পূর্বের চারটি রাজ্যে বিজেপি সেই সমস্ত নেতাদের মুখ্যমন্ত্রীর পদের জন্য বেছে নিয়েছে  যারা কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দিয়েছেন গেরুয়া শিবিরে।

জানুন সেই সমস্ত উত্তর-পূর্বের কংগ্রেস নেতাদের যারা হাত শিবির ছাড়ার জন্য বিজেপি কাছ থেকে বড় পুরষ্কার পেয়েছেন। তাঁরা পুরানো দল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদানের পরে মুখ্যমন্ত্রীর পদ পেয়েছেন। অর্থাৎ কংগ্রেস ছেড়ে দেওয়ার পর বর্তমানে তাঁরা রাজ্য শাসন করছেন। তারই সাম্প্রতিক উদাহরন হল ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী। যিনি কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। একদিন আগে হওয়া ত্রিপুরার বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে ঘোষিত মানিক সাহা যিনি ২০১৬ সালে কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন। বিজেপিতে আসার পর, মানিককে চার বছর পর ২০২০ সালে রাজ্য দলের সভাপতি করা হয়। তিনি ত্রিপুরা ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতিও হন। মানিক সাহা পেশায় একজন দন্ত চিকিৎসক এবং তার ভাবমূর্তি খুবই পরিচ্ছন্ন হওয়ায় আগামী বছরের রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচনের কথা মাথায় রেখেই বিজেপি তাঁকে রাজ্যের শীর্ষ স্থানে বসিয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

বিজেপির থেকে পাওয়া পুরষ্কারের তালিকায় রয়েছেন বহু প্রাক্তন কংগ্রেস নেতা। তাঁদের মধ্যেই একজন হল অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। যিনি ২০২১ সালে অসমের ১৫ তম মুখ্যমন্ত্রী হন। সর্বানন্দ সোনোয়ালের জায়গায় তাঁকে এই দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল৷ বিজেপি শাসিত রাজ্যের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী ১০১৫ সালে কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন। ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচন এবং ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে হিমন্ত বিশ্ব শর্মার জোরালো প্রচারণা বিজেপির জয়ের অন্যতম কারণ হিসাবে বিবেচিত হয়েছিল। উত্তর-পূর্বের অনেক রাজ্যে বিজেপিকে ক্ষমতায় আনতে তিনি একটি বড় অবদান রেখেছিলেন। যার প্রতিদানে বিজেপি তাঁকে করেছেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী।

অন্যদিকে একই রকম ভাবে বিজেপিতে গুরুত্ব পেয়েছেন মণিপুর ও নাগাল্যানন্ডের বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীরা। এন বীরেন সিং ২০১৬ সালে কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন মণিপুরে ২০১৭ সালের বিধানসভা নির্বাচনের ঠিক এক বছর আগে। ১৫ বছর পর, রাজ্যে একটি অ-কংগ্রেস শাসিত সরকার গঠিত হয়েছিল এবং বিজেপি এন বীরেন সিংকে মুখ্যমন্ত্রী করেছিল। ২০২২ সালের কিছুদিন আগেই সমাপ্ত নির্বাচনে, বিজেপি মণিপুরে এন বীরেন সিংয়ের নেতৃত্বে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে এবং জয়লাভ করে। আবার নেইফু রিও নাগাল্যান্ডের প্রথম মুখ্যমন্ত্রী যিনি পরপর তিনটি নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন। রিও ছিলেন প্রবীণ কংগ্রেস নেতা। তিনি ২০২২ সালে কংগ্রেস ত্যাগ করেন। এর পরে, রিও নাগা পিপলস ফ্রন্টে (এনপিএফ) যোগ দেন। এটি স্থানীয় রাজনৈতিক দল এবং বিজেপির সাথে যুক্ত ছিল। একই সময়ে, কংগ্রেস ১০ বছর পর ক্ষমতা থেকে ছিটকে যায় এবং নেইফু রিও প্রথমবারের মতো নাগাল্যান্ডের মুখ্যমন্ত্রী হন।