শিবসেনার বিধায়করা অসমে আসায় বিশেষ ঘটনা ঘটেছে, কৃতজ্ঞতা প্রকাশ মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মার

0
22

গুয়াহাটি: মহারাষ্ট্রের শিবসেনার জোট সরকারের টালমাটাল পরিস্থিতির সঙ্গেই নাম জড়িয়েছে বিজেপি শাসিত রাজ্য অসমের। পিছনে রয়েছে বড় কারণ হল বর্তমানে শিবসেনার বিদ্রোহী বিধায়কদের অবস্থান অসমের রাজধানী গুয়াহাটিতে। একদিকে শিবসেনার জোট সরকার টিকবে কিনা এই নিয়ে রাজনৈতিক মহলে মাথা ব্যথা বাড়ছে ঠিক সেই সময়েই গুয়াহাটিতে থাকা বিক্ষুন্ধ শিবসেনা বিধায়কদের ধন্যবাদ জানিয়েছেন অসমের মুখ্যমন্ত্রী।

অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা যিনি গুয়াহাটির রেডিসন ব্লুতে থাকা বিদ্রোহী সেনা বিধায়কদের আপ্যায়ণের জন্য তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েছে। কংগ্রেস সহ বিরোধীরা এই ঘটনার তীব্র সমালোচনা করেছেন। সমালোচনার সম্মুখীন হয়েও অসমের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা শিবসেনার বিধায়কদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেছেন। মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন শিসেনার বিধায়করা তাঁর রাজ্যে এসেছেন বলেই অসমের বন্যা পরিস্থিতি আরও ভাবে ভাবে সর্বসমক্ষে এসেছে। সেনা বিধায়কদের জন্য রাজ্যের পরিস্থিতি সামনে আসায় তিনি বিধায়কদের কাছে কৃতজ্ঞ বলেই দাবি করেছেন। হিমন্তকে বিরোধীদের পাল্টা জবাব দিয়ে বলেছেন, তিনি তাঁর কাজই করেছেন । শিবসেনার বিধায়কদের জায়গায় উদ্ধব ঠাকরে বা কংগ্রেসের যে কেউ এলেও এই একই আচরণ করবেন বলেও সাফ জানিয়েছেন। পাল্টা প্রশ্ন ছুঁড়ে বলেছেন, “গুয়াহাটিতে আমাদের ২০০ টি হোটেল আছে এবং সবগুলোতেই অতিথি আছে। বন্যা পরিস্থিতির কথা বলে কি আমরা অতিথিদের সরিয়ে দেব?” সেই সঙ্গেই অসমের মুখ্যমমন্ত্রী সাফ জানিয়েছেন তিনি মহারাষ্ট্রের ঘটনার সঙ্গে নিজেকে জড়াবেন না।

আরও পড়ুন- বাড়ছে রাজনৈতিক উদ্বেগ, মহারাষ্ট্রের এই জেলায় জারি ১৪৪ ধারা

উল্লেখ্য, মহারারাষ্ট্রের ঘটনার সঙ্গে নাম জুড়েছে অসমের। কারণ শিবসেনার বিক্ষুব্ধ মন্ত্রী একনাথ শিন্ডের সঙ্গে প্রায় ৫০ জন বিধায়ক রয়েছে সেখানে। গুয়াহাটিতে আতিথেয়তা দেওয়ার জন্য তীব্র কটাক্ষের শিকার হয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা। রাজ্যের বন্যা পরিস্থিতির দিকে নজর না দিয়ে অথিতি আপ্যায়ণে ব্যস্ত মুখ্যমন্ত্রী এই বলেই তোপ দেগেছে কংগ্রেস। বিধায়কদের রাজকীয় আতিথেয়তা দেওয়ার জন্য অসম কংগ্রেস কয়েকদিন আগেই ক্ষোভ উগড়ে বলেছিল, “যখন গুয়াহাটি শহরের শত শত মানুষ বন্যা ও ভূমিধসে বিধ্বস্ত হয়ে চরম অনিশ্চয়তার মধ্যে দিন কাটাচ্ছেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির মধ্যে সময় পার করছেন, তখন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর ঘৃণ্য রাজনীতি নিয়ে এসেছে। আসাম রাজ্যের মানুষের কাছে লজ্জা। ৫৪ লাখ বন্যা-বিধ্বস্ত মানুষকে উপেক্ষা করে অসমের মুখ্যমন্ত্রী মহারাষ্ট্রের বিধায়কদের রাজকীয় আতিথেয়তা দিতে ব্যস্ত।”