ইটানগরে G20 তে অনুপস্থিত চিনকে ঘিরে জল্পনা, নজরে পাকিস্তানও

মে মাসে G20 Meeting on Culture হবে জম্মু-কাশ্মীরে

0
51

খাস ডেস্ক: অরুণাচল প্রদেশের ইটানগরে অনুষ্ঠিত G20 বৈঠক এড়িয়ে গেল চিন। রবিবারের বৈঠকে কেন তাদের কোনও প্রতিনিধি সামিল হননি, তা নিয়ে মুখে কুলুপ শি জিনপিং প্রশাসনের। আয়োজক দেশ ভারতের বিদেশমন্ত্রকও এই নিয়ে এখন পর্যন্ত কোনও বিবৃতি দেয়নি।

চিন এড়ালেও, অরুণাচলের রাজধানী ইটানগরে অনুষ্ঠিত G20 বৈঠকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ ৫০টির ও বেশি দেশের প্রতিনিধিরা সামিল হয়েছিলেন। G20 গবেষণা উদ্ভাবন উদ্যোগ (G20 research and innovation initiative gathering) নিয়ে মতবিনিময় করেছেন সম্মেলনে সামিল হওয়া প্রতিনিধিরা।

- Advertisement -

আরও পড়ুন:টুইটারে Bio পরিবর্তন করে নিজের নজরকাড়া পরিচিতি লিখলেন Rahul Gandhi

রাজধানী ইটানগরে সপ্তাহের শেষ দিনে অনুষ্ঠিত G20 research and innovation initiative gatheringকে confidential বলে জানানো হয়েছিল। আর সেজন্যে সংবাদমাধ্যমের প্রবেশের ছাড়পত্র মেলেনি (media coverage was not permitted)।

তবে আগত প্রতিনিধিদের সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানিয়েছে সংগঠক রাজ্য। জানানো হয়েছে, আমন্ত্রিত প্রতিনিধিরা ইটানগরে বিধানসভা(Arunachal Pradesh legislative assembly) ঘুরে দেখেছেন।

এছাড়া ইটানগরের একটি বৌদ্ধ মঠও পরিদর্শন করেছেন প্রতিনিধিরা। তাছাড়া G20 সদস্য দেশগুলির প্রতিনিধিদের বিমানবন্দরেও cultural troupes বরণ করে নিয়েছে। আগত প্রতিনিধিরা চেখে দেখেছেন সুস্বাদু স্থানীয় খাবার।

চিন কেন ইটানগরের বৈঠক এড়িয়েছে তা নিয়ে রাজনৈতিক জল্পনা তুঙ্গে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ঘিরে যাঁরা নিয়মিত চর্চা চলান তাঁদের অভিমত, শি জিনপিং প্রশাসন সবসময়ই তিব্বতকে চিনের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে দাবি করে আসছে। আর সেই কারণেই, ভারতের northeastern state অরুণাচল প্রদেশকে তারা বলে তিব্বতের একটা অংশ।

বলাবাহুল্য, চিনের এমন আজব দাবিকে ফুৎকারে উড়িয়েছে ভারত। গত ডিসেম্বরেই অরুণাচলের তাওয়াং সেক্টরে লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) দু-দেশের সেনাবাহিনী বারবার সংঘর্ষে জড়িয়েছিল। লালফৌজের সেই দাপাদাপি শক্তহাতে প্রতিহতও করেছে দেশের সেনাবাহিনী। যার জেরে কমবেশি একমাস পূর্ব লাদাখ সীমান্তে অচলাবস্থা দেখা দেয়।

প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং প্রতিবেশী রাষ্ট্র চিনের এমন আগ্রাসনকে কড়া ভাষায় নিন্দা করেন। অভিযোগ করেন, এলএসি বরাবর স্থিতাবস্থাকে চিন একতরফাভাবে” পরিবর্তন করার চেষ্টা করছে (trying to “unilaterally” change the status quo along the LAC.)।

বিস্তারিত খবর, লাইভ ভিডিও সহ সমস্ত রকম আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ:https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

G20 আয়োজক দেশ হিসেবে দায়িত্ব পেতেই ভারত সেই দুহাজার বাইশেই জানিয়ে দিয়েছিল, দেশের ২৮ টি রাজ্য এবং ৮ টি কেন্দ্র শাসিত অঞ্চলেই সম্মেলনকে ছড়িয়ে দেওয়া হবে। পূর্ব ঘোষিত সেই পরিকল্পনা মতেই মার্চে হয়েছে ইটানগরের বৈঠক।

চলতি বছর মে মাসে যেমন জম্মু-কাশ্মীরে রয়েছে G20 Meeting on Culture. সূত্রের খবর, জম্মু-কাশ্মীরে অনুষ্ঠেয় সেই বৈঠক বাতিল করার জন্য জোর চেষ্টা চালাচ্ছে পাকিস্তান। আর এই ব্যাপারে তারা তাকিয়ে চিনের দিকে। সাহায্য চেয়েছে তুরস্ক ও সৌদি আরবের কাছেও।

G20 Presidency পাওয়া ভারত কিন্তু এসবে মোটেই ভীত নয়। বরং পূর্ব পরিকল্পনা মতোই নির্ধারিত সমস্ত বৈঠকগুলি সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করার প্রস্তুতিও চলছে জোরকদমে। একই সঙ্গে, সফল আয়োজনার রেকর্ড উন্নত করার চ্যালেঞ্জও বিশ্বের বৃহত্তম গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের।