রাজ্যে হিন্দুদের বিভক্ত করার চেষ্টা করছে বিজেপি, হনুমান চল্লিশা বিতর্কে বিস্ফোরক উদ্ভব ঠাকরে

0
25

মুম্বই: হনুমান চলিশা এবং লাউডস্পিকারে আজান সংক্রান্ত বিতর্ক নিয়েই দেশ জুড়ে উঠেছে। রাম নবমী ও হনুমান জয়ন্তীকে কেন্দ্র করেই দেশের একাধিক জায়গায় ধর্মীয় সংঘাত তৈরি হয়েছিল। তাঁর মধ্যেই মহারাষ্ট্ররের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ভব ঠাকরের বাড়ির সামনে হনুমান চল্লিশা পাঠ নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে। এই ঘটনার জন্য শুরু থেকেই বিজেপিকে দায়ী করে আসছে শাসক দল শিবসেনা। লাউডস্পিকার এবং হনুমান চল্লিশা নিয়ে বিতর্কের মধ্যে শিবসেনা প্রধান মহারাষ্ট্রে বিজেপি হিন্দুদের বিভক্ত করার চেষ্টা করার বড় অভিযোগ এনেছেন।

বিজেপির নাম না করে মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগ করেছেন যে দলটি মহারাষ্ট্রকে “হিন্দু-বিরোধী” হিসাবে আঁকতে চেষ্টা করছে যেমনটি পশ্চিমবঙ্গ এবং কেরালার ক্ষেত্রে করেছে যা উভয়ই অ-বিজেপি শাসিত রাজ্য। কোঙ্কন অঞ্চল এবং পশ্চিম ও উত্তর মহারাষ্ট্রের শিবসেনার জেলা প্রধানদের সঙ্গে করা অনুষ্ঠানে এই এমনটাই মন্তব্য করেছেন উদ্ভব ঠাকরে। শিবসেনা প্রধানের অভিযোগ, “আমরা সবসময় বলি মহারাষ্ট্র দিক নির্দেশনা দেখায়। এখন, মহারাষ্ট্রকে আবার দিক দেখাতে হবে। এটি মহারাষ্ট্রে হিন্দু ও মারাঠি এবং অ-মারাঠিদের বিভক্ত করার জন্য বিজেপির ষড়যন্ত্র।”

আরও পড়ুন- চলতি বছরের প্রথম বিদেশ সফরে মোদী করবেন ২৫ টা মিটিং, জানুন আর কি কি রয়েছে সফরসূচীতে

সাংসদ দম্পতি নবনীত রানা এবং রবির হনুমান চাল্লিশা পাঠ ঘিরে বিতর্কের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী এহেন মন্তব্য করেছেন। গত ২৩ এপ্রিল বান্দ্রায় ঠাকরের ব্যক্তিগত বাসভবন ‘মাতোশ্রী’-তে হনুমান চালিসা পাঠ করার কথা ঘোষণা করার পরেই এই দম্পতিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল। ঘটনায় অভিযুক্তরা হলেন মহারাষ্ট্রের সাংসদ-বিধায়ক দম্পতি নবনীত রানা এবং তাঁর স্বামী রবি রানা। নবনীত অমরাবতীর সাংসদ এবং তাঁর বিধায়ক স্বামী দুজনেই বিদর্ভ এলাকা থেকে নির্বাচনে জিতেছেন। তবুও মহারাষ্ট্রের ক্ষমতাসীন শিবসেনার অভিযোগ এই বিতর্কের পিছনে রয়েছে বিজেপির হাত।