‘অযোগ্য সরকার’, পাকিস্তানে মিসাইল পড়ার ঘটনায় PM Modi-কে সৎ ও স্বচ্ছ হওয়ার কথা বললেন ওয়াইসি

0
29
AIMIM

নয়াদিল্লি: ভুলবশত পাকিস্তানের মাটিতে ভারতের মিসাইল আঘাত হানার ঘটনা নিয়ে এবার মুখ খুলছেন AIMIM প্রধান প্রধান । শুধু পাকিস্তান নয় ভারতের জবাব নিয়ে এবার প্রশ্ন তুলেছেন ভারতের রাজনৈতিক দলেরই নেতা। এই ঘটনা নিয়ে কেন্দ্রের চাপ বাড়বে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহল মহলের একাংশ।

সারাদিনের সমস্ত খবরের আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন খাস খবর অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ:  https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor

বিস্তারিত খবর, লাইভ ভিডিও সহ সমস্ত রকম আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ:  https://www.facebook.com/khaskhobor2020

ওয়াইসি জানিয়েছেন তিনি চান প্রধানমন্ত্রী মোদী পাকিস্তানের মাটিতে ভারতের ক্ষেপণাস্ত্রে পড়ার ঘটনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বচ্ছ এবং সৎ হন। এমনকি AIMIM প্রধান ৯ মার্চ ২০২২-এর ঘটনার বিষয়ে লোকসভায় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের বিবৃতিতে সন্তুষ্ট নন বলেই জানিয়েছেন। এই নিয়েই বেশ কয়েটি টুইট করেছেন আসাউদ্দিন ওয়েইসি। তিনি জোর দিয়ে বলেছেন, ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর বিবৃতি জনসাধারণকে এই ঘটনা সম্পর্কে কিছুই জানায়নি। যে ঘটনা ব্যাখ্যার দাবি রাখে সেখানে এটিকে একটি ভীতিকর পরিস্থিতি বলে অভিহিত করেছেন।

হায়দ্রাবাদের সাংসদ বলেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং কেন্দ্রীয় সরকারকে অবশ্যই তাদের তুচ্ছ রাজনীতি এবং প্রচারমূলক ছবি থেকে বেড়িয়ে আসতে হবে এবং সেই সঙ্গে ক্ষেপণাস্ত্র নিয়ে দুর্ঘটনার বিষয়ে স্বচ্ছ এবং সৎ হওয়ার দিকে মনোনিবেশ করতে হবে। মোদী সরকারকে কটাক্ষ করে ওয়াইসি বলেছেন, একটি দায়িত্বশীল পারমাণবিক শক্তি হিসাবে ভারতের বিশ্বব্যাপী খ্যাতি রয়েছে এবং এই অযোগ্য সরকারের কারণে এটিকে ধ্বংস হতে দেওয়া যাবে না। মিসাইল উৎক্ষেপণের ঘটনা নিয়ে তিনি প্রশ্ন তুলে জানতে চেয়েছেন, “এটা কি সত্য যে লঞ্চারটিতে আরও ক্ষেপণাস্ত্র ছিল যা প্রথমটি উৎক্ষেপণ করার পরে উড্ডয়ন বন্ধ করতে হয়েছিল? আমরা কি দুই পারমাণবিক অস্ত্রধারী দেশের মধ্যে এই ধরনের পদক্ষেপের পরিণতি কল্পনাও করতে পারি।” ওয়াইসি আর জানতে চেয়েছেন মিসাইলটির নির্ধারিত লক্ষ্য কী ছিল।

আরও পড়ুন- ভারতের গণতন্ত্রের উপর Facebook, Twitter কি প্রভাব ফেলছে লোকসভায় জানালেন Sonia Gandhi

উল্লেখ্য মঙ্গলবারেই পাকিস্তানের বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি রাজনাথ সিংয়ের বক্তব্যকে “অসম্পূর্ণ এবং অপর্যাপ্ত” বলে অভিহিত করেছেন এবং আবারও ঘটনার যৌথ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন। পাক বিদেশমন্ত্রীর পরে ভারতের নেতারই মোদীর স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলার পর এই ঘটনাড় জল গড়িয়ে কোথায় জায় সেটাই দেখার।