BJP-র জয়লাভের পরেই উত্তরপ্রদেশে মুসলিম যুবকদের মধ্যে বেড়েছে এই কাজের প্রবণতা

0
109
Bulldozer
ফাইল ছবি

লখনউ: বিরোধীদের পরাস্ত করে দ্বিতীয়বার উত্তরপ্রদেশে বিজেপি জয়ের ধারা অব্যহত রেখেছে। গোটা রাজ্য মেতে উঠেছে যোগী আদিত্যনাথ ও গেরুয়া শিবিরের জয়ের আনন্দে। এই জয়ের পর রাম রাজ্যে দেখা গিয়েছে এক অন্য ছবি। বলা হয় যোগী নাকি কট্টর হিন্দুপন্থী। তবে এবার যে ছবি সামনে এসেছে তা সত্যিই নজর কাড়ার মত। যোগীর জয়ের পর উত্তরপ্রদেশে শুধু হিন্দুরা নিয় মুসলিম বিশেষ করে যুবকদের মধ্যে আনন্দের জোয়ার পরিলক্ষিত হয়েছে। সেই সঙ্গেই দেখা গিয়েছে একটি বিশেষ কাজ করতে ।

সারাদিনের সমস্ত খবরের আপডেট পেতে ডাউনলোড করুন খাস খবর অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ:  https://play.google.com/store/apps/details?id=app.aartsspl.khaskhobor

বিস্তারিত খবর, লাইভ ভিডিও সহ সমস্ত রকম আপডেট পেতে লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ:  https://www.facebook.com/khaskhobor2020

উত্তরপ্রদেশে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পরেই আগ্রার হিন্দু ও মুসলিম উভয় সম্প্রদায়ের যুবকরা সারিবদ্ধভাবে হাতে যোগী আদিত্যনাথ এবং বুলডোজারের (bulldozers) ছবি দেওয়া ট্যাটু আঁকার জন্য লাইনে দাঁড়িয়েছে। যুবকদের শরীরে বুলডোজার বাবা লেখা ট্যাটু আঁকার প্রবণতা বৃদ্ধি পেয়েছে বলেই জানা গিয়েছে। যাদের শরীরে বুলডোজারের ট্যাটু রয়েছে তাদের মধ্যে মুসলিম যুবকদের সংখ্যাও বাড়ছে। দানিশ খান নামে এক মুসলিম যুবক, যিনি নিজের হাতে ট্যাটু করাতে এসেছিলেন, তিনি সংবাদ মাধ্যমকে বলেছেন, “আমি যোগী আদিত্যনাথ এবং প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর ভক্ত।” তিনি বিজেপির মুসলিম বিরোধীতা প্রসঙ্গে বলেছন, “যদিও মুসলিমরা বিজেপিকে তাদের শত্রু মনে করে, এই কথা আমি এটা বিশ্বাস করি না। এর কারণ হল, যোগীজি গত পাঁচ বছরে যে কাজ করেছেন তা কোনও সরকার করেনি। গত পাঁচ বছরে সরকার যে প্রকল্পগুলি চালু করেছে তা মানুষের সমস্ত অংশের কথা মাথায় রেখে করা হয়েছিল, যা মুসলিম সমাজকেও উপকৃত করেছে।”

রাহিল পারভেজ ন্মের আরও এক ব্যক্তি বলেন, “আমাদের রুপার ব্যবসা আছে। আগের সরকারের আমলে লুটপাটের ঘটনা সাধারণ ছিল, তাই আমরা ভয় পেতাম। কিন্তু উত্তর প্রদেশে বিজেপি সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে অপরাধ বন্ধ হয়ে গেছে। ডাকাতির কোনো ঘটনা নেই। আমরা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথের ভক্ত।” তিনি ট্যাটু প্রসঙ্গে বলেছেন, ” তিনি (যোগী) যা করেছে তা কেউ করতে পারে না। এই কারণেই আমরা সবসময় আমাদের উপর তাঁর ছাপ রাখতে চাই এবং সেই উদ্দেশ্যেই হাতে ট্যাটু করাচ্ছি।” আগ্রার এমজি রোডে অবস্থিত ট্যাটু মন্ত্রের মালিক লক্ষ্য মদন বলেছেন, “নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণার পর থেকেই যুবকদের মধ্যে যোগী জি এবং মোদী জির ট্যাটু করার উন্মাদনা রয়েছে। অনেক সংখ্যক মুসলিম যুবক আসছে এবং তারা তাদের হাতে এবং তাদের বুকে বুলডোজারের ট্যাটু আঁকছে। একদিনে, প্রায় আট থেকে দশজন মুসলিম যুবক এসে বুলডোজার বা যোগী আদিত্যনাথের ছবি তাদের শরীরে ট্যাটু করে নিয়ে যায়।”

আরও পড়ুন- পাঁচ রাজ্যে Congress-র শোচনীয় পরাজয়ের পর Rahul Gandhi-র কি করা উচিত জানালেন কপিল সিব্বল 

এই প্রসঙ্গে জানিয়ে রাখা ভাল, উত্তরপ্রদেশে নির্বাচনের আগে বুলডোজার ( bulldozers) খুব মনোযোগের বিষয় ছিল। গত পাঁচ বছরে, যোগী আদিত্যনাথ সরকার বুলডোজার ব্যবহার করে সরকারি জমি দখল করে থাকা লোকজনের সম্পত্তি গুঁড়িয়ে দেওয়ার কারণেই এই জানের নামটি উঠে এসেছিল। জা নিয়ে চর্চাও কিছু কম হয়নি। উল্লেখ্য, যোগী আদিত্যনাথকে তাঁর সমর্থক ও প্রতিদ্বন্দ্বী উভয়েই বুলডোজার বাবা বলে ডাকতেন। এমনকি ৪০৩ টি আসনের মধ্যে উত্তরপ্রদেশে ২৫৫ টি আসন নিয়ে ক্ষমতায় ফেরার পর তাঁর সমর্থকরা অনেকগুলি মাটির গাড়ি নিয়ে একটি বিজয় মিছিলও করেছিল।