রাম মূর্তি তৈরিতে ব্যবহার হবে ৬ লাখ বছরের পুরনো নেপালি পাথর, জানুন সেই পাথরের বিশেষত্ব

0
144
Shaligram stones

লখনউ: ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনের আগে উদ্বোধন করা হবে বহু প্রতীক্ষিত অযোধ্যার রামমন্দির। কাজ চলছে পুরোদমে। আগাই জানানো হয়েছে যে রামমন্দিরে রাখা ভগবান রামের মূর্তি নেপালের শিলাগ্রাম পাথরে(Shaligram stones)  খোদাই করা হবে। এই পাথরের বেশ অনেক বিশেষত্ব। বিশেষ পাথর দিয়ে তৈরি ভগবান রাম মূর্তি উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় বিশাল রাম মন্দিরকে শোভা পাবে।

নেপালের কালী গন্ডকি নদী থেকে খনন করা শিলাগ্রাম পাথর ব্যবহার করে ভগবান রামের মূর্তি তৈরি করা হবে। জানা গিয়েছে, ৩০ টন ওজনের দুটি শিলাগ্রাম পাথরের স্ল্যাব নেপাল থেকে ট্রাকে করে অযোধ্যায় আনা হয়েছে। মূর্তি খোদাই করার আগে, পাথরগুলির যথাযথ আচার পালন ও পূজা করা হবে। এই পাথরের স্ল্যাবগুলি ভারতে আসার সময়ে সঙ্গে রয়েছেন নেপালের প্রাক্তন উপ-প্রধানমন্ত্রী বিমলেন্দ্রও। জানা গিয়েছে নেপাল থেকে আনা দুটি পাথরের স্ল্যাবের ওজন ১৮ এবং ১২ টন। পাথরগুলি ৫-৬ ফুট লম্বা এবং ৪ ফুট চওড়া। তবে যাই হোক রাম মূর্তির জন্য কেন নেপাল থেকে শালিগ্রাম পাথর আনা হচ্ছে এই প্রশ্ন রয়েছে গোটা দেশের মানুষের মানেই। জেনে নিন কারণ।

- Advertisement -

আরও পড়ুন- শাহরুখের ‘পাঠান’-এর থেকেও ‘সুপারহিট’ নির্মলার বাজেট, মন্তব্য বিজেপি বিরোধী সাংসদের

৬ লাখ বছরের পুরনো শিলাগ্রাম পাথরের গুরুত্ব জানুন…

শিলাগ্রাম পাথরকে বিষ্ণুর অবতার বলে মনে করা হয়। হিন্দুরা শিলাগ্রামের পূজা করে। শিলাগ্রাম নামের পাথর বিশেষকরে নেপালের গন্ডকি নদীতে পাওয়া যায়। হিমালয় থেকে দ্রুত প্রবাহিত জল পাথরগুলিকে ছোট ছোট টুকরো টুকরো করে দেয়। বিশেষজ্ঞদের মতে এই পাথরগুলি ৩৩টি বিভিন্ন ধরণের জীবাশ্ম। কেবল রামের মূর্তি বানানো হচ্ছে এমটা নয়, মূর্তি তৈরিতে সারা দেশে এই পাথর ব্যবহার করা হয়। ধর্মীয় পৌরাণিক কাহিনী অনুসারে, এই পাথরগুলি ভগবান বিষ্ণুর অবতার হিসাবে পূজা করা হয়। এটা বিশ্বাস করা হয় যে যেখানেই এই পাথরের পূজা করা হয়, দেবী লক্ষ্মী সেই স্থানেই কৃপা করেন।

উল্লেখ্য, ভগবান রাম মূর্তির পাশাপাশি সীতার মূর্তিও একই শিলাগ্রাম (Shaligram stones) পাথরের স্ল্যাব থেকে খোদাই করা হবে। রাম মন্দিরের চূড়ান্ত নির্মাণের পর মন্দিরের গর্ভগৃহে (গর্ভগৃহ) দুটি দুটি মূর্তি স্থাপন করা হবে। জানানো হয়েছে, ২০২৪ সালের মকর সংক্রান্তির আগে রামের মূর্তি তৈরি করা হবে। নেপালের গাঙ্কি রাজ্য সরকার এই পাথরগুলো জনকপুরের জানকী মন্দিরে হস্তান্তর করেছে। এই পাথরগুলো অযোধ্যায় পাঠানোর সব ব্যবস্থাই করেছিল নেপাল। ১৫ ডিসেম্বর, নেপালের মন্ত্রিসভা এই শিলাগ্রাম পাথরগুলি ভারতে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়। কালীগন্ডকি নদীতে প্রাপ্ত পাথরগুলি বিশ্বে সুপরিচিত এবং অত্যন্ত মূল্যবান।