যৌন সঙ্গমে অনীহা ভয় ধরাচ্ছে শারীরিক সম্পর্ক

0
294

খাস ডেস্ক: শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে খোলাখুলি কথা বলতে গেলে সঙ্কোচ বোধ করেন অনেকে। যৌনমিলনে একজন নারী পুরুষ চরম তৃপ্তি পেয়ে থাকেন তারপর যৌনমিলন নিয়ে সরাসরি কথা বলাতে রয়েছে বাঁধা। সঙ্গম অনেক ক্ষেত্রে মানসিক শান্তি আনে, শরীর মনের ক্লান্তি দূর করে। মেজাজ ফুরফুরে করে তোলে। এত কিছুর পর যদি আসে সঙ্গম ফোবিয়া বা সেক্স ফোবিয়া এর কারণ কি? ধরুণ আপনার পার্টনার সঙ্গমে আগ্রহী নয়। কোন না কোন ভাবে শারীরিক সম্পর্ক এড়িয়ে চলছেন এর কারণ হতে পারে সঙ্গমে ভয়।

সঙ্গী যৌন সঙ্গম চাইছেন না তেমনটা নাও হতে পারে, হয়তো চাইছেন তারপরও একটা ভয় যা তাকে এড়িয়ে যেতে বাধ্য করছে শারীরিক সম্পর্ক। আর এই ভয় থেকে তৈরি হয় মানসিক ট্রমা অনেকক্ষেত্রে এই মানসিক ট্রমা বা ভয়ের কথা বাইরে আসে না। খোলাখুলি আলোচনায় বসা হয় না পার্টনারের সঙ্গে, ভয়ের কারণ নিয়ে সরাসরি কথা বললে অনেকক্ষেত্রে সমস্যার সমাধান হতে পারে কিন্তু সেটা হয়ে ওঠে না। শারীরিক সম্পর্ক নিয়ে বলতে গেলে চলে আসে লজ্জা। নিজের সমস্যা খোলাখুলি ভাবে বলতে যেমন সঙ্কোচ করেন মেয়েরা তেমন ডাক্তারের কাছে গিয়ে সবটা বলতেও তাদের লজ্জাবোধ হয় ।

- Advertisement -

যৌনসঙ্গীর মিলনে অনীহা আসতে পারে মানসিক চাপ, স্ট্রেস থেকে। মাঝ বয়সী মহিলাদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা বেশি দেখতে পাওয়া যায়। যৌন উত্তেজনা হারিয়ে যাওয়ার পিছনে রয়েছে শারীরিক নানাবিধ সমস্যা, টানা ঘুম না হওয়া। প্রথমবার পেনিট্রেটিভ সেক্স অনেকের ভয় ধরায়। কারণটা মূলত ব্যথা লাগা। স্পর্শে যদি ভালবাসার ছোঁয়া না থাকে তাহলে সমস্ত বিষয়টা যান্ত্রিক মনে হতে পারে অনেকক্ষেত্রে, আর এই মনে হওয়া যৌন সঙ্গমে ভয় ধরায়। শারীরিক গঠন নিয়ে সমস্যায় ভোগেন অনেকে। দীর্ঘ দিন ধরে শারীরিক গঠন নিয়ে যদি নানারকম মন্তব্য শুনতে হয় তাহলে উৎকণ্ঠায় ভোগেন মহিলারা।

সেক্সের সময় অর্গাজম হয় না অনেক মহিলার, উত্তেজনা থাকলেও অর্গাজম না হওয়ার কারণ মানসিক চাপ, সঙ্গীর নানাবিধ আচরণ নিয়ে ভোগা, হরমোনের সমস্যা। এই সময় সঙ্গীর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ সঙ্গমের সময়ে পার্টনারের ভাল লাগা, খারাপ লাগার দিকে নজর দেওয়া প্রয়োজন। এই নজর দেওয়া গুলো না থাকলেই বাড়তে পারে আরও সমস্যা যা শারীরিক মিলনে বাঁধা হয়ে দাঁড়ায়। সরাসরি কথা বলতে কেউ না চাইলে সেই সময়ে পাশে থেকে আসল সমস্যাটা জানতে চাওয়া পার্টনারের দায়িত্ব। ধৈর্য নিয়ে খোলাখুলি দুজনের কথা বলা দরকার। কথা বলতে আগ্ৰহী নন সঙ্গী এমন সময়ে পার্টনারের উচিত পাশে থাকা।