“আইনী ব্যবস্থাকে অকেজো করে রাখা হয়েছে”, তৃণমূলকে পাল্টা দিলেন সেলিম

0
172

কলকাতা: বৃহস্পতিবার রাখীপূর্ণিমার দিনই গরু পাচারকাণ্ডে গ্রেফতার অনুব্রত মণ্ডল। একাধিকবার জেরা এড়ানোর পর এবার আর ছাড়ল না সিবিআই। নিঃসন্দেহে অস্বস্তিতে বাংলার শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। তবে বিরোধীরা কটাক্ষ করতে ছাড়ছে না।সিপিএম থেকে শুরু করে বিজেপি সকলেই দাপুটে অনুব্রত মণ্ডলের গ্রেফতারি নিয়ে সরব। এদিন এক সাংবাদিক বৈঠক করে তৃণমূল কংগ্রেস দলের অবস্থান স্পষ্ট করে।

তৃণমূলের বক্তব্যের পাল্টা দিতে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিমও সাংবাদিক বৈঠক করেন।তৃণমূলকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “দলের নীতিটা কী? দলের প্রশ্ন টানা হবে না কেন? অনুব্রত মণ্ডল কে? একমাত্র মাগুর মাছের ঝোল খাওয়ার সময় তার কথা মনে পড়ত। মগুর ছেড়ে মাগুর ধরল তা তৃণমূলের দৌলতে। ধরা পড়ার সময় বলবে দলের কেউ নয়। দলের ঝাণ্ডা দেখিয়ে ও সেই ঝাণ্ডায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুখ দেখিয়ে তো যত ব্যবসা। যা করেছে অনুব্রত মণ্ডল, এটা কী শৃঙ্খলাভঙ্গের জন্য? এইসব করলেই দলে আসা যায়।”

- Advertisement -

আরও পড়ুন: অনুব্রতর গ্রেফতারি: শরৎ এর আগেই সোশ্যাল মিডিয়ায় চড়াম চড়াম ঢাকের শব্দ

তিনি আরও বলেন, “আইনী ব্যবস্থাকে অকেজো করে রাখা হয়েছে। নবান্নকে জবাব দিতে হবে মুখ্যমন্ত্রীকে জবাব দিতে হবে কেন আইন প্রয়োগ হয়নি? জেলার এতসব কাণ্ডের পরেও বেতাজ বাদশা বীরভূমের।” উল্লেখ্য এদিন তৃণমূলের সাংবাদিক বৈঠকে জানানো হয়, দল কোনও দূর্নীতি বরদাস্ত করবে না। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রে পাঁচদিনের মাথায় তাঁকে দল থেকে অপসারণ করা হয়। দলের নিয়ম আছে। সবদিক বিবেচনা করেই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।