ঘুমন্ত কুকুর ছানাকে হত্যা, রুখে দাঁড়ালেন দুই তরুণী

0
75

কলকাতা: বয়স মাত্র ছ’মাস৷ তাঁর অপরাধ, রোদ্দুর থেকে বাঁচতে দোকানের শেডের ছায়ায় আশ্রয় নেওয়া৷ সেই ‘অপরাধে’ই ছ’মাসের একটি ঘুমন্ত কুকুর ছানাকে কাঠের বাটাম দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করল এক যুবক৷ মর্মান্তিক এই ঘটনার প্রতিবাদে রুখে দাঁড়িয়েছেন এলাকার দুই তরুণী৷ তাঁদেরই প্রতিবাদের জেরে অবশেষে গ্রেফতার অভিযুক্ত যুবক৷ ঘটনাটি কলকাতার ইকো পার্ক থানা এলাকার৷ ধৃত যুবকের নাম সাবিরুল মল্লিক। শাসন থানা এলাকার বাসিন্দা।

নিবেদিতা বিশ্বাস ও দোলা রায় নামে ওই দুই তরুণীর অভিযোগ, শুক্রবার দুপুরে তারা হঠাৎ করে কুকুরের কান্নার আওয়াজ পান৷ এরপরই তারা ফ্ল্যাট থেকে নিচে নেমে এসে দেখেন কুকুরটি পড়ে আছে। ওই বিল্ডিংয়ে জল দিতে আসা যুবক দেখে, উল্টো দিকের কাঠের দোকানের এক কর্মচারী ওই কুকুরছানাটিকে বাটাম দিয়ে ঘুমন্ত অবস্থায় মেরে ফেলে৷ দোলা বলেন, ‘‘আমরা কুকুরটিকে উদ্ধার করে এনে শুশ্রুষা করছিলাম৷ পাশের এক যুবক একটি ইনজেকশন দেয়। জল ছাড়া সারাদিন আর কিছুই খাচ্ছিল না। শনিবার সকাল থেকে কুকুর ছানাটির শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে৷ সন্ধ্যের সময় বেলগাছিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এমার্জেন্সিতে চিকিৎসা চলাকালীন কুকুর ছানাটি মারা যায়৷

‘ডেড বডি’ নিয়েই দুই তরুণী হাজির হনইকোপার্ক থানায়৷ সেখানে কাঠের দোকানের অভিযুক্ত কর্মচারীর বিরুদ্ধে এফআইআর রুজু করেন তাঁরা৷ রাতেই পুলিশ অভিযুক্ত যুবককে গ্রেফতার করে। আজ ধৃতকে বারাসত আদালতে তোলা হবে৷ নিবেদিতার অভিযোগ, ‘‘একটা ছ’মাসের বাচ্চা কুকুরকে মেরে ফেলার মধ্যেও ছেলেটার মধ্যে কোনও অনুশোচনা নেই৷ বলছে, ওটা তো রাস্তার কুকুর৷ আপনি কেন এসবের মধ্যে জড়াচ্ছেন৷ অভিযোগ না তুললে দেখে নেওয়ার হুমকিও দেয়৷’’ পুলিশ সূত্রের খবর, মৃত কুকুর ছানার দেহের ময়নাতদন্ত করা হবে৷ তবে হাসপাতালে দেহ সংরক্ষণের কোনও ব্যবস্থা না থাকায় ওই দুই তরুণী নিজেদের বাড়িতেই বরফে সংরক্ষণ করে রেখেছেন মৃত কুকুর ছানার দেহটি৷

আরও পড়ুন: বিফলে শুভেন্দুর চেষ্টা, তৃণমূলেই যোগ দিচ্ছেন অর্জুন সিং