লকডাউনে রোগী দেখতে বেরিয়ে বিপাকে চিকিৎসক

0
91

কলকাতা: সফল ভাবেই পালন করা হয়েছে বাংলার লকডাউনের প্রথম দিন। কলকাতা এবং সংলগ্ন এলাকার রাস্তায় বিশেষ লোকজন দেখা যায়নি। অত্যাবশ্যকীয় পণ্য এবং জরুরী পরিষেবার ক্ষেত্রে দেওয়া হয়েছিল বিশেষ ছাত্র। এরই মাঝে বিপাকে পড়লেন কলকাতার এক চিকিৎসক।

আরও পড়ুন- লকডাউন কার্যকরি করতে তৎপর পুলিশ, রাজ্যজুড়ে চলল নাকা চেকিং

সরকারি নির্দেশিকা অনুসারে চিকিৎসা জরুরী পরিষেবা। সেই কারণে চিকিৎসকদের ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছিল লকডাউনে। সেই অনুযায়ী, কলকাতার এক চিকিৎসক বৃহস্পতিবার রোগী দেখতে বেরিয়েছিলেন। নিয়মিত ওই সময়ে রোগী দেখতে যান তিনি। এদনিও তেমনই বেরিয়েছিলেন। আর তাতেই ঘটেছে বিপত্তি। পুলিশের রোষানলে পড়তে হয়েছে শহরের ওই চিকিৎসককে।

লকডাউনের মাঝে গাড়ি নিয়ে রাস্তায় বেরনোর অপরাধে তাঁকে কেস দেওয়া হয়েছে কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে। যদিও রাস্তায় কর্তব্যরত পুলিশের কোনও কর্মী ধরতে পারেননি ওই চিকিৎসককে। রাস্তায় থাকা সিসিটিভি ফুটেজ দেখে অভিযুক্ত করা হয়েছে ওই চিকিৎসককে। গাড়ির নম্বরের সঙ্গে রেজিস্টার করা মোবাইলে নম্বরে মেসেজ পাঠিয়ে সেই বার্তা দেওয়া হয়েছে কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে। লকডাউনের দিনে কেন বাইরে বেড়িয়েছিলেন তা ওই চিকিৎসকের থেকে জানতে চেয়েছে লালবাজার। অন্যথায় আইন অনুযায়ী কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানিয়ে দিয়েছে কলকাতা পুলিশ।

আরও পড়ুন- উত্তর কলকাতার যুব তৃণমূলের দায়িত্বে অনিন্দ্য, দক্ষিণে বাপ্পাদিত্য

করোনা মোকাবিলায় ফের সপ্তাহে দুই দিন করে লকডাউন জারি রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল রাজ্য। চলতি সপ্তাহে বৃহস্পতিবার এবং শনিবার সেই লকডাউন জারির কথা জানিয়েছিলেন রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী সপ্তাহের বুধবারেও সমগ্র রাজ্যে সম্পূর্ণ লকডাউন জারি থাকবে বলে জানিয়েছিলেন আলাপনবাবু।

 

কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে এদিন সকাল থেকে সন্ধ্যা ছ’টা পর্যন্ত লকডাউন ভেঙে বাইরে যাওয়ার অভিযোগে ৮৮৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। একই সঙ্গে মাস্ক ব্যবহার না করার জন্য গ্রেফতার করা হয়েছে ৫৫২ জনকে। দিন ভর অভিযানে মোট ৩০টি গাড়ি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। রাস্তায় থুতু ফেলার অভিযোগে গ্রেফতার করা হয়েছে ৪০ জনকে।