নিয়োগে দুর্নীতি: বিচারকের নজরে আরও একাধিক নেতা, মন্ত্রী

0
20

কলকাতা: অতিরিক্ত শূন্যপদ তৈরি করে অযোগ্যদের চাকরিতে রাখার মরিয়া প্রচেষ্টা শুরু হয়েছে৷ তবে তিনি থাকতে সেটা যে হতে দেবেন না, লাগাতার নিযোগ প্রক্রিয়ায় পর্যবেক্ষণ করে সেটা আগেই ইঙ্গিত দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়৷ এবার এজলাসে বসে এই প্রসঙ্গেই বিচারপতি টেনে আনলেন দালাল চক্রের প্রসঙ্গ৷ বললেন, “আমি কিছু দালাল, যারা মুখপাত্র বলে পরিচিত এবং কিছু মন্ত্রীর নাম বলতে পারি, যাঁরা প্রকাশ্যে বলেছেন কারও চাকরি যাবে না।”

স্বাভাবিকভাবে, বিচারপতির এমন পর্যবেক্ষণ ঘিরে কোর্টপাড়ায় নতুন করে ফিসফিসানি শুরু হয়েছে৷ মনে করা হচ্ছে, নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় আরও অনেকে যে জড়িত রয়েছেন এবং এই বিষয়ে আদালত ও তদন্তকারী সংস্থার কাছে যে তথ্যও রয়েছে, পরোক্ষে সেটাই বোঝাতে চেয়েছেন বিচারপতি৷ যার জেরে আগামীদিনে আরও অনেককে জেলের গরাদে দেখা যেতে পারে বলেও আশঙ্কা তৈরি হচ্ছে৷ বস্তুত, নিয়োগ কেলেঙ্কারি মামলায় ইতিমধ্যে হাজতবাসে রয়েছেন রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ শিক্ষা দফতরের একাধিক পদস্থ আধিকারিক৷

- Advertisement -

বস্তুত, নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় অযোগ্য চাকরিপ্রার্থীদের পুনর্বহালের আবেদন জানিয়েছিল স্কুল সার্ভিস কমিশন। সম্প্রতি সেটা প্রত্যাহার করার অনুমতি জানানো হয় আদালতে। যদিও এদিন তা প্রত্যাহার করার অনুমতি দেননি বিচারপতি। এই প্রসঙ্গেই কমিশনকে ভর্ৎসনা করে বিচারপতিকে বলতে শোনা যায়, ‘‘কমিশনকে সামনে রেখে পিছন থেকে কেউ কেউ অযোগ্যদের চাকরি বাঁচাতে চাইছেন। আমি কিছু দালাল, যারা মুখপাত্র বলে পরিচিত এবং কিছু মন্ত্রীর নাম বলতে পারি, যাঁরা প্রকাশ্যে বলেছেন কারও চাকরি যাবে না।” স্বাভাবিকভাবেই, বিচারপতির এমন পর্যবেক্ষণ ঘিরে নতুন করে আরও অনেক নেতা, মন্ত্রীর গ্রেফতারির জল্পনা তৈরি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে৷

আরও পড়ুন: পেটে লাথি মারার হুমকি, সরকারি হাসপাতালে রক্ষীর বিরুদ্ধে মহিলাকে মারধরের নালিশ