মত্ত অবস্থায় চেম্বারে বসতেন, ফাঁস হল ভুয়ো চিকিৎসকের রহস্য

0
24
Doctor

প্রতিবেদন: হাওড়ার বোটানিক্যাল গার্ডেন থানার এবার দক্ষিণ ২৪ পরগনার নরেন্দ্রপুর থানা৷ ফের পুলিশের জালে ভুয়ো চিকিৎসক (Fake Doctor)৷ হাওড়ার মতো এক্ষেত্রেও সামনে এসেছে অন্য চিকিত্সকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে চিকিত্সা করার অভিযোগ। এভাবে একের পর এক ভুয়ো চিকিৎসকের কাণ্ড সামনে আসায় প্রশ্ন উঠছে, রাজ্যে এমন কতজন ভুয়ো চিকিৎসক রয়েছেন? স্বভাবতই, চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে আমজনতার মধ্যেও৷ ‘যেখানে দেখিবে ছাই, উড়াইয়া দেখ তাই’ প্রবাদ আউড়ে পুলিশের এক কর্তা বলছেন, ‘‘চিকিৎসা করান৷ কিন্তু চোখ কান খোলা রাখুন৷ সবাই সতর্ক হলেই ঠেকানো যাবে এমন ভুয়ো চিকিৎসকদের’’

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রের খবর, এদিন ভুয়ো চিকিৎসক (Fake Doctor) ধরা পড়ার ঘটনাটি ঘটেছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার নরেন্দ্রপুর থানা এলাকায়৷ ধৃত ভুয়ো চিকিৎসকের নাম অশোক মণ্ডল। স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, লক ডাউনের কিছু দিন আগে থেকে ওই ব্যক্তি রাজপুর-সোনারপুর পুরসভা এলাকার ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের লস্করপুরে আসেন৷ সেখানেই বাড়ি ভাড়া করে চেম্বার খুলে বসেন তিনি৷

- Advertisement -

প্রথমদিকে টুকটাক চিকিৎসা করলেও ইদানিং অধিকাংশ সময়ই মত্ত অবস্থায় চেম্বারে আসতেন৷ রোগীদের গালিগালাজ করতেন৷ এই নিয়ে সন্দেহ হয় এলাকাবাসীর। ফের এদিনও মত্ত অবস্থায় চেম্বারে আসেন তিনি৷ এরপরই বাসিন্দারা তাঁকে ঘেরাও করে বিক্ষোক্ষ শুরু করেন৷ রেজিস্ট্রেশন দেখাতে না পারায় এবং কথায় বিস্তর অসঙ্গতি থাকায় নরেন্দ্রপুর থানার পুলিশ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করে৷ পুলিশের দাবি, অন্য চিকিত্সকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে চিকিত্সা করছিলেন অভিযুক্ত৷

বস্তুত, গত ৭ মে বোটানিক্যাল গার্ডেন থানার বাকসারা রোড এলকা থেকে পুলিশ গ্রেফতার করে বি কে সিং নামে এক ভুয়ো চিকিৎসককে (Fake Doctor)৷ অভিযোগ, অশোকতরু সেনগুপ্ত নামে এক চিকিৎসকের রেজিস্ট্রেশন নম্বর ব্যবহার করে রমরমা ব্যবসা ফেঁদেছিলেন ওই অভিযুক্ত৷ বিষয়টি জানতে পারার পর অশোকতরুবাবু মেডিক্যাল কাউন্সিলে অভিযোগ জানান৷ এরপরই তদন্তে নেমে অভিযুক্ত ভুয়ো চিকিৎসককে গ্রেফতার করে পুলিশ৷

আরও পড়ুন:বিশ্বভারতীতে অচলাবস্থা, অগ্নিপথের উদাহরণ টেনে আনছেন পড়ুয়ারা