দূরবীনের ভেতরে বিয়ার, কিন্তু মাঠে ঢোকার আগেই ধরা পড়ে গেলেন সমর্থক

0
35
Budweiser

বিশ্বদীপ ব্যানার্জি: আরও একবার বিতর্কে কাতার বিশ্বকাপ। বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার ঠিক আগেই মদ্যপান নিয়ে একাধিক বিধিনিষেধ জারি করেছিল কাতারের প্রশাসন। যার মধ্যে অন্যতম হল, মাঠে অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না। এবারে সেই অ্যালকোহল লুকিয়ে নিয়ে ঢুকতে গিয়েই পুলিশের হাতে ধরা পড়ে গেলেন এক দর্শক।

আরও পড়ুন: কাতার বিশ্বকাপে খেলছে ছেলে, মায়ের বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাসের ভিডিও ভাইরাল

- Advertisement -

ঘটনাটি ঘটেছে মেক্সিকো বনাম পোল্যান্ড ম্যাচে। মেক্সিকোর জনৈক সমর্থক স্টেডিয়ামে লুকিয়ে বিয়ার নিয়ে ঢোকার চেষ্টা করেন। বুদ্ধিটা-ও জব্বর ফেঁদেছিলেন তিনি। একটি দূরবীনের ভেতরে বিয়ার লুকিয়ে মাঠে ঢোকার চেষ্টা করেন তিনি। কিন্তু পরিকল্পনা শেষপর্যন্ত কাজে এল না। মাঠের বাইরে উপস্থিত এক পুলিশকর্মী দূরবীনটিতে চোখ রাখতেই বুঝতে পারেন কিছু একটা গোলমাল আছে।

এরপর দূরবীনটি খুলতেই সন্ধান পাওয়া যায় বিয়ারের। তৎক্ষণাৎ দূরবীনটি বাজেয়াপ্ত করে পুলিশ। যদিও এরপরেও শাস্তির কবলে পড়তে হয়নি উক্ত মেক্সিকান সমর্থককে। শুধু সতর্ক করেই তাঁকে মাঠে ঢুকতে দেওয়া হয়। উল্লেখ্য, কাতারের রাজ পরিবারের নির্দেশেই বিশ্বকাপ চলাকালীন স্টেডিয়ামগুলিতে বিয়ার বা যে কোনও ধরণের অ্যালকোহলযুক্ত পানীয় বিক্রি নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফিফা-ও কার্যত একপ্রকার বাধ্য হয়েছে এই নিষেধাজ্ঞা মেনে নিতে। বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার ঠিক প্রাক্কালে সমস্ত স্টেডিয়ামে বিয়ার বিক্রি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ব ফুটবলের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা।

খাস খবর ফেসবুক পেজের লিঙ্ক:
https://www.facebook.com/khaskhobor2020/

অবশ্য স্টেডিয়ামে যে বিয়ার একেবারেই পাওয়া যাচ্ছে না, তা নয়। স্টেডিয়ামে এক ধরনের বিশেষ বিয়ার পাওয়া যাচ্ছে, তাতে অ্যালকোহল নেই। কিন্তু তাতে কি আর পাশ্চাত্য দুনিয়ার লোকজনের পোষায়? কাতার বনাম ইকুয়েডর, বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে লাতিন দেশটির সমর্থকদের চিৎকার করে বলতে শোনা গিয়েছে, “বিয়ার চাই, বিয়ার দাও।” তবে মাঠে না পাওয়া গেলেও নির্দিষ্ট কিছু হোটেল এবং ফিফা ফ্যান জোনে বিয়ার, হুইস্কি, রাম, ওয়াইন সবই পাওয়া যাবে। ফিফা সভাপতি জিয়ান্নি ইনফান্তিনো শনিবার একটি সাংবাদিক বৈঠক ডেকে এ প্রসঙ্গে বলেন, “স্টেডিয়ামে যাতে বিয়ার বিক্রি করা যায়, তার জন্য শেষ মুহূর্ত অবধি চেষ্টা করে গিয়েছি। তবু বলছি, তিন ঘণ্টা বিয়ার না পান করলে কেউ মরে যাবেন না। বোধহয় এজন্যই স্কটল্যান্ড, স্পেন ফ্রান্স ইত্যাদি দেশে স্টেডিয়ামে মদ বিক্রি নিষিদ্ধ। ওরা আমাদের থেকে বেশি সচেতন।”