মারাদোনার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ কিউবান মহিলার

0
60

খাস খবর ডেস্ক: মানুষমাত্রে কেউই ধোয়া তুলসীপাতা নয়। বিশেষ করে বরেণ্যরা। তাঁদের নামে ক্ষণে ক্ষণেই ভেসে ওঠে একাধিক স্ক্যান্ডাল। ঠিক যেমন প্রয়াত ফুটবল রাজপুত্র দিয়েগো মারাদোনা। একটি আর্জেন্তিনীয় সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে জনৈকা কিউবান নারী তাঁর নামে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন সম্প্রতি।

আরও পড়ুন: ক্রিকেট মাঠে ঢোকা গেলেও আইএসএল দর্শকহীন, নেপথ্যে কোন রহস্য

এই মহিলার নাম মাভিস আলভারেজ। সাংবাদিকদের সামনে যিনি গল্পের মত বর্ণনা করেছেন মারাদোনা এবং তাঁর সম্পর্কের ইতিবৃত্ত। কীভাবে কিংবদন্তি ফুটবলারের সঙ্গে তাঁর সম্পর্ক হয়, তারপর ধর্ষণের শিকার হতে হয়? কীভাবে তাঁকে মাদকাসক্ত করেছেন প্রয়াত মারাদোনা? মহিলা এও দাবী করেন, তিনি তখন মাত্র ১৬ বছরের ছিলেন। ফলে মারাদোনা তাঁকে কৃত্রিম স্তন স্থাপনে বাধ্য করেন।

এবারে এইসব কথা বলার জন্য একটু হলেও অনুশোচনায় না ভুগে পারছেন না আলভারেজ। তবে সেই দুঃখ একজন প্রয়াত কিংবদন্তির সম্বন্ধে এহেন অভিযোগ করার জন্য নয়। মৃত্যুর আগে মোট ৫ জনকে নিজের সন্তানের স্বীকৃতি দিয়ে গিয়েছেন মারাদোনা। আলভারেজ বুঝতে পারছেন, এই সন্তানদের কাছে পিতার নামে এমন অভিযোগ শোনা কতটা কষ্টকর। তাই মহিলা কিছুটা হলেও অনুতপ্ত না হয়ে পারছেন না।

তাঁর কথায়, “কাউকে কষ্ট দেওয়া আমার উদ্দেশ্য ছিল না। কিন্তু এই অভিজ্ঞতা আমার পক্ষে সামনে না আনা ছাড়া উপায়ও ছিল না। আমি বুঝতে পারছি, দিয়েগোর সন্তানদের পক্ষে এ অভিযোগ সহ্য করা কতটা কষ্টের। কারণ উনি ছিলেন ওদের বাবা।” আলভারেজ যে ঘটনার কথা বলছেন, তা আজ থেকে ২০ বছর আগের। ইতিমধ্যে মারাদোনাও ইহলোক ত্যাগ করেছেন। স্বাভাবিকভাবেই প্রশ্ন উঠছে। যদি এসব সত্যিই হয়, তাহলে এতদিন কী করছিলেন মহিলা?

আরও পড়ুন: “সোনার ছেলে” পেদ্রি, জিতে নিলেন ইউরোপের শ্রেষ্ঠ পুরস্কার

এই প্রশ্নে কোনও ভিত্তিই খুঁজে পাচ্ছেন না মহিলা। “অনেকে ভাবছেন আমি হয়ত অর্থের জন্য এই অভিযোগ আনছি। এভাবে বিষয়টি কেন দেখা হচ্ছে?” যোগ করেন, “আমাকে যে অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়েছে, তেমনটা হয়ত অনেককেই হয়েছে। শুধু পরিপ্রেক্ষি হয়ত আলাদা। এই অভিজ্ঞতাকে কেন্দ্র করে অর্থ উপার্জন করার কথা আমি অন্ততঃ ভাবতেও পারিনা। আমি শুধু বাকী নারীদের জন্য একটি পন্থা রেখে যেতে চাই। যাতে ভবিষ্যতে এই পরিস্থিতিতে পড়লে তাঁরা ভয়ে পিছিয়ে না পড়েন।”