23 C
Kolkata
Monday, December 6, 2021
Home এক্সক্লুসিভ EXCLUSIVE সাতাশ বছর পরে আজও গলা শুকিয়ে যায়, টেনশন হয়: মীর

EXCLUSIVE সাতাশ বছর পরে আজও গলা শুকিয়ে যায়, টেনশন হয়: মীর

রেডিও জগতে তিনি নয় নয় করে কাটিয়ে ফেললেন সাতাশটি বছর। আজ তিনি অন্যতম সফল রেডিও জকি মীর। শুধুমাত্র রেডিও জকি নন, তিনি একাধারে অভিনেতা, সঞ্চালক, গায়ক মীর আফসার আলী। ৬ই অগাস্ট ১৯৯৪ সালে তাঁর রেডিওর যাত্রাপথ শুরু হয়েছিল। তারপর পেরিয়ে গিয়েছে অনেকগুলো বছর। অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে তিনি আজ ‘বেতার বাদশা’ মীর। রেডিও জকি হিসেবে সাতাশ বছর কাটিয়ে ফেলার দিনেই মীরের সঙ্গে টেলিফোনে একান্ত আলাপচারিতায় খাস খবর এর তরফ থেকে পূর্বাশা দাস।

- Advertisement -

প্রশ্ন: এই সাতাশ বছরের জার্নিটাকে কীভাবে ব্যাখ্যা করবে?

মীর: এখনও প্রত্যেকদিনই শিখছি। নতুন করে কথা বলা শিখছি। আজও আমি সকাল সাতটায় যখন মাইক্রোফোন অন করি তখন একই রকম টেনশন হয় যে টেনশনটা আমার ৬ই অগাস্ট ১৯৯৪ সালে আকাশবাণী স্টুডিওতে হয়েছিল। প্রত্যেকদিন এই টেনশনটা আছে বলেই আমি নিজের ওপর একটা ভরসা করতে পারি। মনে হয় খুব তাড়াতাড়ি বোধহয় আমি ফুরিয়ে যাব না। এই কথা আমি আমার একটা পোস্টে লিখেছিলাম। আমার আব্বা আমাকে বলেছিলেন এই ‘এফএম টেফএম’ করে কী হবে! এগুলো করে কতদিন চলবে? কারণ আমার বাবা-মা দুজনের কাছেই এই মাধ্যম সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা ছিল না। ‘এফএম’ কনসেপ্টের সঙ্গে উনাদের কোনও যোগসূত্র ছিলনা। তাই উনারা খুবই সন্ধিহান ছিলেন। এই এফএমে ভবিষ্যৎ কতটা উজ্জ্বল বা ‘এফএম টেফএম’ করে কী করে চলবে ভবিষ্যতে এই প্রশ্ন আমার আব্বা আমাকে করেছিলেন। এখনও এত বছর পরেও যে আমি পুরোপুরি এই জবাবটা খুঁজে পেয়েছি তা নয়। তবে এটুকু বলব যে আমার ভয়টা কেটে গেছে। আমার শেখার আগ্রহটা যেহেতু এখনও আছে তার মানে আমি খুব তাড়াতাড়ি ফুরিয়ে যাব না, এটা ভেবে আমি নিজের উপর আস্থা রাখতে পারি।

- Advertisement -

প্রশ্ন: সাতাশ বছর পরে চূড়ান্ত সফল রেডিও জকি মীরকেও সেই জবাবটা এখনও খুঁজতে হয়?

মীর: অ্যাবসেলিউটলি। তুমি দ্যাখো এই প্যানডেমিক এর আগে কত মানুষ তাদের স্থায়ী চাকরি, প্রতিভা, ব্যবসা নিয়ে নিশ্চিন্ত জীবন কাটাচ্ছিলেন। কিন্তু হঠাৎ করে এই দেড়টা বছর তাদের জীবন পুরো পাল্টে দিয়েছে। যারা একটা সময় সিকিওর চাকরি করতেন তারা এখন এই পরিস্থিতির পরে অন্য জায়গায় চাকরি খুঁজছেন। যারা একটা সময় মোটা টাকা বেতন পেতেন তারা এখন আগের থেকে কম বেতনের চাকরি করছেন। এই জীবনে কোনও কিছুরই নিরাপত্তা নেই। সেই কারণে আমিই বা নিজেকে নিরাপদ মনে করি কী করে! তাই এখনও ভয় লাগে যে দিনের শেষে আমি আমার পেশার উপর সৎ থাকতে পারব কী না। আমার পেশার সঠিক মূল্যায়ন করতে পারব কী না। এই পেশাতে আমার সাতাশ বছরের ব্যাখ্যা আমি অনেকটা এই ভাবেই করতে পারি।এখনও সাতটার সময় মাইকটা অন করার আগে গলাটা একটু শুকিয়ে যায়। এখনও একটু ভয় পাই। আর যতদিন এই গলা শুকিয়ে যাওয়ার ভাবটা রয়েছে, যতদিন এই ভয়টা রয়েছে আমার মনে হয় ততদিন আশাও রয়েছে।

- Advertisement -

প্রশ্ন: রেডিও জকি হওয়ার ইচ্ছে কী তোমার প্রথম থেকেই ছিল? যদি ‘রেডিও জকি’র পেশাতে না আসতে তাহলে অন্য কোন পেশা বেছে নিতে?

মীর: আমি এই পেশাতে আসব সেটা কোনও দিনই ভাবিনি। তবে হ্যাঁ আমি বরাবরই রেডিওর ভক্ত ছিলাম। আমার বাড়িতে টিভি আসে অনেক পরে।স্কুলের বন্ধু, অন্যান্য বন্ধু-বান্ধব সবার বাড়িতে টিভি ছিল। কিন্তু আমার বাড়িতে টিভি ছিলনা। আমি বাড়িতে টিভি দেখার সুযোগ পেয়েছি ১৯৯০ সালে। ইতালিতে যে বছর ওয়ার্ল্ড কাপ হয়েছিল তখন আমার আব্বা ডিসকাউন্টে টিভি বিক্রি হচ্ছিল বলে একটা সাদা-কালো টিভি কিনেছিলেন। কালার টিভি কিন্তু নয় ব্ল্যাক এন্ড হোয়াইট টিভি। আমার পনেরো বছর বয়সে বাড়িতে টিভি আসে। তার আগে পর্যন্ত আমার বাড়িতে রেডিও ছিল। আমি সারাক্ষন রেডিওতে বুঁদ হয়ে থাকতাম। কিন্তু আমি ভবিষ্যতে এই রেডিওতেই যে আমি কাজ করব বা এটাই আমার পেশা এবং নেশা হয়ে উঠবে তা কোনও দিন ভাবিনি। আর আমি যদি রেডিওর পেশায় না আসতাম তাহলে আমি আর পাঁচটা সাধারণ মানুষের মতো চাকরি করতাম। তখন আমি এমবিএ জন্য পড়াশোনা করছিলাম, চার্টার অ্যাকাউন্ট্যান্সি’র জন্য পড়াশোনা করছিলাম। আমার কলেজের ফার্স্ট ইয়ারে উনিশ বছর বয়সে রেডিওতে প্রবেশ। ফলে আমার ছাত্রজীবন তখনও চলছিল। আমি তখনও কলেজে পড়তাম। তাই খুব স্বাভাবিকভাবে আর পাঁচটা ছাত্র যেরকম ভাবে কলেজ করছে সঙ্গে বিভিন্ন রকম কোর্স করছে আমিও ঠিক সেইভাবেই এগিয়ে যাচ্ছিলাম। আমার এই পেশায় যদি সাফল্য না আসত বা আমি রেডিওতে প্রবেশ না করতাম তাহলে আমি ওই কাজটাই করে যেতাম।

প্রশ্ন: তোমার হয়ত এই রেডিওর পেশাতে আসাটাই অবশ্যম্ভাবী ছিল। না হলে তোমার জন্মদিন আর ‘ওয়ার্ল্ড রেডিও ডে’ একই দিনে হত না…

মীর: …ওটা একেবারেই একটা কাকতালীয় ঘটনা। ২০১২ সালে ইউনেস্কো এর তরফে ঘোষণা করা হয় ১৩ই ফেব্রুয়ারি দিনটিকে ‘ওয়ার্ল্ড রেডিও ডে’ হিসেবে পালন করা হবে। এর থেকে বেটার বার্থডে গিফট আমার কাছে আর অন্য কিছু হতে পারে না! আমার এটাই মনে হয়েছিল যে আজীবনের জন্য রেডিও মাধ্যম আমাকে জন্মদিনে বিশেষ উপহার দিল। এটা আমার জীবনের সবথেকে উল্লেখযোগ্য একটা কাকতালীয় ঘটনা।

প্রশ্ন: আজকে তুমি এত সফল। তোমার এই সাফল্যের পেছনে তো একটা স্ট্রাগলের গল্প আছে। সে সম্পর্কে যদি কিছু বল।

মীর: স্ট্রাগলের গল্প সংক্ষেপে বলা খুব মুশকিল। একটা সময় বিভিন্ন অ্যাড কোম্পানির দফতরে দফতরে ঘুরেছি। নিজের কন্ঠস্বর রেকর্ড করে ক্যাসেট জমা দিয়েছি। তাদের বলেছি যদি কোনও কাজ থাকে একটু বলবেন। কোথাও যদি কন্ঠস্বর দানের কোনও সুযোগ থাকে একটু জানাবেন। সেই জায়গা থেকে আজ যখন মানুষজন ‘সানডে সাসপেন্স’ শুনে প্রশংসা করেন বা সকাল বেলায় রেডিওতে আমার অনুষ্ঠান শোনার জন্য ঘুম থেকে উঠে পড়েন সেটা আমার কাছে বড় প্রাপ্তি। মানুষজনকে ঘুম থেকে তুলে শুধুমাত্র যে আমার শো’ শোনাতে পারছি সেটা নয়, আমি মানুষজনকে রেডিও শোনাতে পারছি; এই পুরো ব্যাপারটা আমার কাছে স্ট্রাগল্ ছিল। আর এই স্ট্রাগলে যে আমি কিছুটা সফল হতে পেরেছি তাই এই ‘রেডিও’ মাধ্যমটার প্রতি আমি ভীষণ কৃতজ্ঞ।

প্রশ্ন: যারা ‘রেডিও জকি’র পেশায় আসতে চাইছেন তাদের জন্য তোমার তরফ থেকে কি টিপস্ থাকবে?

মীর: আমার তরফ থেকে একটাই টিপ্ থাকবে। ওয়ান সলিড টিপ্। প্রথম এবং মূল্যবান শর্ত হল ভালো শ্রোতা হতে হবে। তুমি যদি ভালো শ্রোতা না হও তাহলে কোনও দিনও ভালো বক্তা হতে পারবেনা। তাই আমি বলব সবার আগে ভালো শ্রোতা। তারপরে ভালো বক্তা। এছাড়া ট্রেনিং বা অন্যান্য খুঁটিনাটি বিষয় গুলো ঠিক ম্যানেজ হয়ে যায়। কিন্তু এই মূলমন্ত্রটা মাথায় রাখা ভীষন জরুরী।

প্রশ্ন: সাতাশ বছরে রেডিও’র দুনিয়াটাকে কতটা পাল্টাতে দেখলে?

মীর: টেকনোলজি পাল্টেছে। মানুষের দৃষ্টিভঙ্গি পাল্টেছে। আমরা একটা সময় গ্রামোফোন রেকর্ড, ক্যাসেট, সিডি এগুলো দেখে এসেছি। কিন্তু এখন মানুষের হাতের মুঠোয় সবকিছু এক ক্লিকেই পাওয়া যায়। টেকনোলজি পাল্টে গেছে। সেই সঙ্গে মানুষের পছন্দটা পাল্টে গেছে। মানুষ এখন শুধু গান শোনে না, গান দেখেও। আমার শুরুর দিনগুলোতে ইউটিউব এর মতো কোনও প্ল্যাটফর্ম ছিল না। তখন মানুষ গান শুনতেন। আর এখন মানুষ গান শোনার সঙ্গে সঙ্গে গান দেখেন। এই একটা বড় পরিবর্তন এসেছে রেডিও মাধ্যমে।

- Advertisement -

সপ্তাহের সবচেয়ে জনপ্রিয় সংবাদ

Vicat: ক্যাটের প্রতি প্রতিশোধ নিতে সারার সঙ্গে এক ভিডিওতে ভিকি

পূর্বাশা দাস: রাজকুমার রাও পত্রলেখার বিয়ে মিটতে না মিটতেই ভিকি-ক্যাটরিনার বিয়ের দিন গোনা শুরু। এর মধ্যে আবার প্রয়াত সুশান্ত সিং রাজপুতের প্রাক্তন বান্ধবী অঙ্কিতা...

মিঠাই তে লিঙ্গবৈষম্য দেখে ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা

অর্পিতা দাস: মোদক পরিবার ও মিঠাই সিদ্ধার্থ কে নিয়ে সবসময় দারুন খুশি থাকেন কিন্তু গল্পের খাতিরেই এবার মিঠাই তে লিঙ্গবৈষম্য- মিঠাইয়ের ওপর এই অবিচার...

৭৪০০ টাকার চাকরি পেলেন রূপঙ্কর বাগচী

অর্পিতা দাস: 'চাকরিটা আমি পেয়ে গেছি বেলা শুনছো?' অঞ্জন দত্ত নয়, এই কথা যেন বলছেন গায়ক রূপঙ্কর বাগচি। তবে রূপঙ্কর বাগচীর জীবনের এক ও...

৭টা রিহ্যাবে থেকে নেশামুক্ত হয়ে জীবনের আসল হিরো শুভঙ্কর সাহা

অর্পিতা দাস: এভাবেও ফিরে আসা যায়- প্রায় সব হারিয়ে আবার নতুন করে ফিরে এলেন অভিনেতা শুভঙ্কর সাহা। প্রিয়জনদের হারিয়ে, নেশাগ্রস্ত হয়ে একসময় ইন্ডাস্ট্রি থেকে...

খবর এই মুহূর্তে

Himanta Biswa Sarma : “হিমন্ত বিশ্ব শর্মা অসমের সবচেয়ে সাম্প্রদায়িক মুখ্যমন্ত্রী” বলছে কংগ্রেস

নয়াদিল্লি : হিমন্ত বিশ্ব শর্মা অসমের সবচেয়ে সাম্প্রদায়িক মুখ্যমন্ত্রী, রবিবার রাজ্যের হিন্দু ও মুসলমানদের বিষয়ে শর্মার মন্তব্যের পরে কংগ্রেস বলেছে। শতাব্দী প্রাচীন দল অভিযোগ...

Suvendu Adhikari: শুভেন্দুর বাংলায় রাজনীতি করার দিন শেষ, বিস্ফোরক দাবি যুব তৃনমূল নেতার

কাঁথি: রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে তীব্র ভাষায় আক্রমন করলেন তৃনমূলের যুব নেতা সুপ্রকাশ গিরি৷ তাঁর দাবি, ‘‘শুভেন্দুর বাংলায় রাজনীতি করার দিন শেষ। ওঁকে...

Amit Shah : “কংগ্রেস গরীবদের হত্যা করেছে” : অমিত শাহ

জয়পুর : কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ রবিবার বিজেপি রাজ্য কার্যনির্বাহী কমিটির বৈঠকে যোগ দিতে রাজস্থানের জয়পুরে পৌঁছেছেন। তাকে স্বাগত জানিয়েছেন রাজস্থানের প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বসুন্ধরা...

Varun Gandhi : উত্তরপ্রদেশ পুলিশের ভূমিকার নিন্দা করে যোগীর অস্বস্তি বাড়ালেন বরুণ গান্ধী

লখনউ : যদি শূন্যপদ থাকে এবং যোগ্য প্রার্থীও থাকে তবে কেন নিয়োগ নেই, বিজেপি সাংসদ বরুণ গান্ধী রবিবার প্রশ্ন তুলেছেন যে তিনি লখনউতে চাকরিপ্রার্থীদের...