23 C
Kolkata
Monday, December 6, 2021
Home খাস বিনোদন হ্যাপি ফাদার্স ডে...

হ্যাপি ফাদার্স ডে…

পূর্বাশা দাস: প্রত্যেকটা সন্তানের জীবনে যেমন তার মায়ের গুরুত্ব থাকে তেমনই গুরুত্ব থাকে বাবারও। মা যেমন পরম মমতায় আগলে রাখেন সন্তানদের, বাবা তেমন এই পৃথিবীটাকে চিনতে শেখান। আগামীকাল ‘ফাদার্স ডে’। ‘ফাদার্স ডে’এর আগে ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়, দেবলীনা কুমার, অনুভব কাঞ্জিলাল জানালেন তাঁদের জীবনে তাঁদের বাবার অবদানের কথা। খাস খবর এর তরফ থেকে সে কথা শুনলেন পূর্বাশা দাস।

- Advertisement -

অভিনেতা ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়ের জীবনে তাঁর বাবা শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়ের অবদান অনেকটাই। ছোট থেকেই বাবার সঙ্গে থিয়েটার করেছেন ঋতব্রত। পরবর্তীকালে বাবার সঙ্গে একই ছবিতেও কাজ করেছেন। টলিউডের বাবা-ছেলের জুটির মধ্যে অন্যতম শান্তিলাল এবং ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়।

ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়: আমার জীবনে এতদিনে আমি যেটুকু যা শিখতে পেরেছি তার অবদান আমার মা এবং বাবা দুজনেরই। কিন্তু আমার কাজের ক্ষেত্রে বাবার অবদান অনেক বেশি। বাবাকে দেখেই আমার অভিনয় শেখা। বাবা আমার ইন্সপিরেশন। বাবা না থাকলে কাজের ক্ষেত্রে আমার চয়েজগুলো হয়তো ভুল হত। বাবা যেহেতু একই কাজের সঙ্গে যুক্ত তাই আমি কোন ছবি করব বা স্ক্রিপ্ট বোঝার ক্ষেত্রে আমাকে অনেকটা সাহায্য করেছেন আমার বাবা। আমি একটা কথা বিশেষ করে বলতে চাই, যে শান্তিলাল মুখোপাধ্যায়ের ছেলে হওয়ার কারণে কাজ পাওয়ার জন্য বাড়তি কোনও সুবিধা আমি পাইনি।

- Advertisement -

আমার প্রথম ছবি ‘কাহানি’তে আমি অডিশন দিয়েই কাজ পেয়েছি। এখনও কিন্তু স্ক্রিনটেস্ট, অডিশন দিয়েই কাজ পাই। যেহেতু বাবা আর আমি একই প্রফেশনে তাই অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হয়। অনিচ্ছাকৃত কোনও ভুল হলে সেটা নিয়ে অনেক তুলনা টানা হয়। আলাদা করে কখনও ফাদার্স ডে পালন করা হয় না। বাবার সঙ্গে আমি অনেক বেশি সময় কাটাই। প্রচুর গল্প করি আমরা। বাড়িতে একসাথে খেতে বসে তুমুল আড্ডা চলে আমাদের।

রাসবিহারী কেন্দ্রের বিধায়ক দেবাশীষ কুমারের একমাত্র কন্যা দেবলীনা কুমার। নিজের রাজনৈতিক কেরিয়ারের তুমুল ব্যস্ততার সামলেও দেবাশীষ কুমার সব সময় চেষ্টা করেছেন তাঁর মেয়ের পাশে থাকতে। সেই কথাই উঠে এল দেবলীনার গলায়।

- Advertisement -

দেবলীনা কুমার: আমার বাবা সম্পর্কে আমি কি বলব, কতটা বলব সেটা ভাষায় প্রকাশ করা আমার পক্ষে খুব মুশকিল। বাবা তাঁর এত ব্যস্ততার মধ্যেও ছোট থেকে আমাকে অনেক সময় দিয়েছেন। বড় হয়ে যাওয়ার পরে এখনও এত সময় দেন আমার বাবা তার জন্য সত্যিই আমার নিজেকে লাকি মনে হয়। অনেক সময় আমার কাজ বা পড়াশোনা নিয়ে বাবার কোনও মতামত হয়তো আমার পছন্দ হয়নি। ঝগড়া করেছি সেই মুহূর্তে বাবার সঙ্গে। কিন্তু পরে দেখেছি বাবার মতামত গুলোই ঠিক। ছোট থেকেই বাবার প্রচুর সাহায্য পেয়েছি আমি। সেগুলো আমাকে অবশ্যই আমার কাজের ক্ষেত্রে কিছুটা সাহায্য করেছে।

 

কিন্তু অনেকেই ভাবেন দেবাশীষ কুমারের মেয়ে হিসেবে আমি বাড়তি সুযোগ পেয়েছি। সেটা ঠিক নয়। সেক্ষেত্রে আমার যোগ্যতাকে ছোট করা হয়। আমি দেবাশীষ কুমারের মেয়ে হিসেবে জন্মেছি এটাতে আমার কোনও হাত ছিল না। আমি এরপরের প্রত্যেকটা জন্মে দেবাশীষ কুমারের মেয়ে হিসেবেই জন্মাতে চাই। ‘ফাদার্স ডে’ সহ বিভিন্ন দিনগুলো আমি পালন করি। বলা ভাল আমার জন্যই আমার বাবা মা এই দিনগুলো খালি রাখেন। প্রতি বছর একসাথে কোথাও খেতে যাই আমলা। এবছরের ফাদার্স ডে তেও আমরা একসাথে লাঞ্চে যাব। আগের বছর গুলোতে আমি বাবা-মা যেতাম।

এ বছর আমাদের পরিবারের নতুন সদস্য আমার স্বামী গৌরবও আমাদের সঙ্গে যাবে। অন্যান্য বছর আমরা সাধারণত ডিনারে যাই কিন্তু এবছর প্যানডেমিক এর জন্য রেস্টুরেন্টের সময়সীমা নির্দিষ্ট করা হয়েছে। তাই আমরা এবছর লাঞ্চে যাব। কোথায় যাব সেটা যদিও এখনও ঠিক করা হয়নি। বাবাকে আমি জিজ্ঞাসা করেছিলাম কি উপহার চাই তোমার? উত্তরে বাবা আমাকে বলেছিলেন, “আমার লক্ষীর ভান্ডারে তুমি কিছু দিয়ে দিও।” বাবার এই কথায় আমি খুব হেসেছিলাম। তবে ফাদার্স ডে উপলক্ষে আমি বাবাকে বিশেষ কিছু উপহার দেব। সবশেষে আমার একটাই চাওয়া “বাবা তুম্ জিও হাজারো সাল।”

‘অব্যক্ত’, ‘গুলদস্তা’, ‘সহবাসে’ ছবিতে অভিনয় করেছেন অনুভব কাঞ্জিলাল। অনুভবের অভিনয় শিক্ষার হাতেখড়ি তাঁর বাবা নাট্যকর্মী,পরিচালক অঞ্জন কাঞ্জিলালের কাছেই। বাবা-ছেলের সম্পর্কের রসায়ন কেমন তা জানালেন অনুভব নিজেই।

অনুভব কাঞ্জিলাল: বাবার সাথে আমার সম্পর্কটা বন্ধুর মতো। আমি যত বড় হয়েছি বাবার সাথে বন্ধুত্বটা তত গাঢ় হয়েছে। আমার বাবা অসম্ভব গুণী একজন মানুষ। আমি ছোটবেলা থেকেই বাবার মতো হতে চেষ্টা করেছি। আমার মনে হত, যদি আমি বাবার মতো অভিনয় করতে পারতাম, বাবার মত যদি আমি লিখতে পারতাম তাহলে কত ভালো হত! আমার জীবনে সবথেকে বড় রোল মডেল আমার বাবা। বাবার সাথে আমি ছোট থেকেই একসাথে থিয়েটার করেছি। তারপর যখন পরবর্তীকালে বাবার পরিচালনায় অভিনয় করতে করেছি তখন যেন আমি আর বাবা সহকর্মী হয়ে গিয়েছিলাম।

এমনকি ‘সহবাসে’ এর সেটে আমি বাবাকে অঞ্জনদা বলেই ডাকতাম। আমার বাবা কোন দিনই আমাকে পিতৃসুলভ উপদেশ দেননি। আমি ছোট থেকেই বাবার কাজগুলো খুব অনুসরণ করতাম। বলা ভালো বাবাকে খুব অনুকরণ করার চেষ্টা করতাম। আমার বাবা যেমন খুব ঘর পরিষ্কার করতে ভালোবাসেন, রান্না করতে খুব ভালোবাসেন এগুলো দেখেই আমার বেড়ে ওঠা। আমি দেখেছি আমার বাবা-মা সমান ভাবেই সব কাজ ভাগ করে নিয়েছেন। এটা আমাকে অনেক কিছু শিখিয়েছে।

ফাদার্স ডে পালন করি আমরা। তাই বলে বাড়ি সাজিয়ে খুব জাঁকজমক করে কিছু করা হয়না। একসাথে অনেক আড্ডা হয়। বিশেষ কিছু রান্না করা হয। আমি যেহেতু বাবা-মা’কে ছেড়ে একটা অন্য শহরে থাকি তাই আমাদের কাছে সেলিব্রেশন মানে একসাথে দেখা হওয়া, জমিয়ে আড্ডা দেওয়া। লকডাউনের সময় আমরা অনেকটা সময় একসঙ্গে ছিলাম। তখন পুরো সময়টায় একটুও বোর হইনি আমরা। বাবা-মায়ের সঙ্গে থিয়েটার, সিনেমা, বিভিন্ন স্ক্রিপ্ট সবকিছু নিয়ে কথায়, আড্ডায় দিনগুলো কেটেছে।

- Advertisement -

সপ্তাহের সবচেয়ে জনপ্রিয় সংবাদ

Vicat: ক্যাটের প্রতি প্রতিশোধ নিতে সারার সঙ্গে এক ভিডিওতে ভিকি

পূর্বাশা দাস: রাজকুমার রাও পত্রলেখার বিয়ে মিটতে না মিটতেই ভিকি-ক্যাটরিনার বিয়ের দিন গোনা শুরু। এর মধ্যে আবার প্রয়াত সুশান্ত সিং রাজপুতের প্রাক্তন বান্ধবী অঙ্কিতা...

মিঠাই তে লিঙ্গবৈষম্য দেখে ক্ষুব্ধ নেটিজেনরা

অর্পিতা দাস: মোদক পরিবার ও মিঠাই সিদ্ধার্থ কে নিয়ে সবসময় দারুন খুশি থাকেন কিন্তু গল্পের খাতিরেই এবার মিঠাই তে লিঙ্গবৈষম্য- মিঠাইয়ের ওপর এই অবিচার...

৭৪০০ টাকার চাকরি পেলেন রূপঙ্কর বাগচী

অর্পিতা দাস: 'চাকরিটা আমি পেয়ে গেছি বেলা শুনছো?' অঞ্জন দত্ত নয়, এই কথা যেন বলছেন গায়ক রূপঙ্কর বাগচি। তবে রূপঙ্কর বাগচীর জীবনের এক ও...

৭টা রিহ্যাবে থেকে নেশামুক্ত হয়ে জীবনের আসল হিরো শুভঙ্কর সাহা

অর্পিতা দাস: এভাবেও ফিরে আসা যায়- প্রায় সব হারিয়ে আবার নতুন করে ফিরে এলেন অভিনেতা শুভঙ্কর সাহা। প্রিয়জনদের হারিয়ে, নেশাগ্রস্ত হয়ে একসময় ইন্ডাস্ট্রি থেকে...

খবর এই মুহূর্তে

স্টেশনে ট্রেন থামতেই মমতার কাছে ছুটে গেলেন অনুব্রত, জল্পনা তুঙ্গে

বোলপুর: আগে থেকেই তৈরি ছিলেন তিনি৷ শতাব্দী এক্সপ্রেস বোলপুর স্টেশনে থামতেই নির্দিষ্ট বগিতে এগিয়ে গেলেন তৃণমূলের বীরভূমের জেলা সভাপতি, দোর্দন্ডপ্রতাপ নেতা অনুব্রত মণ্ডল৷ ট্রেনের ভিতর...

বিদ্যুৎ দফতরে কর্মী নিয়োগে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ, জানুন বিস্তারিত

খাস খবর ডেস্ক: মহামারী কাটিয়ে একের পর এক কর্মসংস্থান নিয়োগ করা হচ্ছে কর্মী। বাংলা এবার বিদ্যুৎ দফতরে কর্মী নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করল। সরকার অনুমোদন...

বিয়ে বাড়ির সিজনে করিনার মত উজ্জ্বল ত্বক 

লাইফস্টাইল ডেস্ক : সারা বছর সাজগোজ করলেও সাজগোজের আদর্শ সময় কিন্তু শীতকাল। একদিকে পিকনিক অন্যদিকে বিয়ে বাড়ি। আর সবচেয়ে বড় কথা হল ঘাম হয়ে...

Harry Potter : নতুন বছরে নয়া চমক 

বিনোদন ডেস্ক: নারায়ন দেবনাথের হাঁদা-ভোঁদা, বাঁটুল দ্য গ্ৰেটের সঙ্গে ছোটবেলায় আমরা আরও একটি গল্পে ডুব দিয়েছিলাম; তা‌ হল জে কে রাউলিং- এর লেখা Harry...