ভালো বন্ধু থেকে সাগ্নিকের সঙ্গে গোপনে সম্পর্ক, পল্লবীর মৃত্যুর পর মুখ খুললেন প্রাক্তন স্ত্রী

0
779

খাস ডেস্ক: টেলি অভিনেত্রী পল্লবী দের রহস্যমৃত্যুর পর তদন্ত শুরু হতেই একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে আসছে। পল্লবীর প্রেমিক সাগ্নিক ও তার অপর সঙ্গী ঐন্দ্রিলার বিরুদ্ধে গড়ফা থানায় খুনের অভিযোগ দায়ের করেছে তাঁর পরিবার। এরই মধ্যে অভিনেত্রীর মৃত্যু নিয়ে মুখ খুললেন প্রাক্তন স্ত্রী সুকন্যা মান্না।

আরও পড়ুন: কাশ্মীরে ব্যর্থ বড় সন্ত্রাসবাদী হামলার ছক, ধ্বংস সন্ত্রাসবাদী মডিউল , গ্রেফতার ৭ লস্কর জঙ্গি

সুকন্যা জানান, ‘সাগ্নিকের সঙ্গে চার পাঁচ বছরের একটি সম্পর্ক ছিল। পল্লবীর সঙ্গে গভীর বন্ধুত্ব না থাকলেও ভালো চেনা জানা ছিল। সেই সূত্রেই রেজিস্ট্রির সময় সাক্ষী হিসেবে সই করে পল্লবী।’ সুকন্যার জন্মদিনেও আসে পল্লবী। এরপর থেকেই শুরু হয় একাধিক সমস্যা। কয়েকদিনের মধ্যেই প্রাক্তন স্ত্রী জানতে পারে, গোপনে পল্লবীর সঙ্গে সম্পর্কে লিপ্ত হয়েছে সাগ্নিক। এরপরই সাগ্নিকের সঙ্গে সম্পর্ক ভেঙে দেন তিনি। সুকন্যা জানিয়েছেন, ২০২০-র পর থেকেই আর কোনও যোগাযোগ নেই তাদের মধ্যে। ফোন কল তো দূরের কথা মেসেজেও কথা হয়নি। তবে পল্লবীর মৃত্যুর সঠিক তদন্ত চান সাগ্নিকের প্রাক্তন স্ত্রী। তিনি জানিয়েছেন, ‘খুন বা আত্মহত্যা, যাই হোক, তদন্তে সামনে আসুক।’

আরও পড়ুন: চড় মেরেছিল বাবা, প্রতিশোধ নিতে এক বছরের শিশুকে নৃশংস ভাবে খুন করল নাবালক

রবিবার গড়ফার ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয় ছোট পর্দার জনপ্রিয় অভিনেত্রী পল্লবী দের মৃতদেহ। ওই ফ্ল্যাটে প্রেমিক সাগ্নিক চক্রবর্তীর সঙ্গে লিভ ইনে থাকত। পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে সাগ্নিক জানায়, ‘মানসিক অবসাদের কারণেই আত্মহত্যা করেছে পল্লবী।’ ময়নাতদন্তে আত্মহত্যা উল্লেখ করা হলেও পল্লবীর পরিবারের দাবি, সাগ্নিকই তাদের মেয়েকে আত্মহত্যার প্ররোচনা দিয়েছে। তদন্ত শুরু হতেই তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে উঠে আসে জগাছার বাসিন্দা ঐন্দ্রিলার নাম। পরিবারের দাবি, ঐন্দ্রিলার সঙ্গে বেশ ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল সাগ্নিকের। সোমবার পল্লবীর বাবা-মার অভিযোগের ভিত্তিতে সাগ্নিক চক্রবর্তী এবং ঐন্দ্রিলা মুখোপাধ্যায়ের নামে খুন, প্রতারণা সহ একাধিক ধারায় মামলা রুজু করল গড়ফা থানার পুলিশ।