ফেল করেও পাশের দাবি, সংক্রমণের গতিতে ছড়াচ্ছে বিক্ষোভ

0
81

খাসখবরের প্রতিবেদন: বনগাঁ থেকে কলকাতা কিংবা হালিশহর থেকে নদিয়া, ক্রমেই সংক্রমণের গতিতে ছড়াচ্ছে উচ্চ মাধ্যমিকে অকৃতকার্য হওয়া পড়ুয়াদের দাবি৷ স্কুলে স্কুলে বিক্ষোভের পর এবার এলাকায় এলাকায় রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভে নেমেছেন পড়ুয়ারা৷ কোনও কোনও ক্ষেত্রে আবার দেখা যাচ্ছে পড়ুয়াদের অবরোধে সামিল হয়েছেন অভিভাবকেরাও৷

সবমিলিয়ে যে হারে রাজ্যের জেলায় জেলায় অকৃতকার্য পড়ুয়াদের পাশ করিয়ে দেওয়ার দাবিতে অবরোধ-বিক্ষোভ সংক্রমণের হারে ছড়াতে শুরু করেছে তাতে আগামীদিনে শিক্ষা ব্যবস্থা নিয়েই উদ্বিগ্ন ওয়াকিবহাল মহল৷ তাঁদের মতে, এমনটা চলতে থাকলে আলাদা করে পরীক্ষার কোনও গুরুত্বই থাকবে না৷ পাল্টা মতও উঠে আসছে৷ কোভিডকে ভিলেন বানিয়ে আন্দোলনকারীদের দাবি, এবারটা মুকুব দেওয়া হোক৷ তবে এই পরিস্থিতির জন্য অনেকে আবার রাজ্যের শিক্ষা পরিকাঠামো নিয়েই প্রশ্ন তুলছেন৷ ৩৫ শতাংশ নম্বর পেলেই উচ্চ মাধ্যমিকের বিজ্ঞান শাখায় পড়াশোনা করা যাবে৷ রাজ্য শিক্ষা দফতরের এই নির্দেশিকাকে সামনে এনে ওই মহলের মতে, শিক্ষা ব্যবস্থায় ন্যূনতম কড়াকড়ি না থাকলে আগামীদিনে ফেল করেও পাশ করিয়ে দেওয়ার প্রবণতা আরও বাড়বে৷

- Advertisement -

বস্তত, গত ১০ জুন প্রকাশিত হয়েছে চলতি বছরের উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল। সামগ্রিকভাবে এবছর উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পাশের হার ৮৮.৪৪ শতাংশ। বাকিদের একাংশ ইতিমধ্যেই নেমেছেন পাশ করিয়ে দেওয়ার দাবিতে অবরোধ আন্দোলনে৷ সাত সকালে যশোর রোড অবরোধ করে আত্মহত্যার হুমকি দিয়ে আন্দোলনে নেমেছেন বনগাঁ কুমুদিনী স্কুলের ছাত্রীরা৷ পাশ করানোর দাবিতে রাস্তা আটকে বিক্ষোভ শুরু হয়েছে রাজারহাট চৌমাথাতেও। পুলিশের সঙ্গে বচসা ছাত্রছাত্রীদের। নদিয়ার মাজদিয়া স্কুলের উচ্চ মাধ্যমিকে ফেল করা পড়ুয়ারা আবার পাস করানোর দাবি নিয়ে হাজির খোদ কলকাতা বিকাশ ভবনের সামনে৷ ওয়াকিবহাল মহল বলছে, এমনটা চলতে থাকলে আগামীদিনে রাজ্যের শিক্ষার মান আরও পড়বে, সেটা বলাই বাহুল্য৷

আরও পড়ুন: স্পিকারের নিরপেক্ষতা নিয়ে ফের প্রশ্ন তুললেন শুভেন্দু, বিক্ষোভে উত্তাল বিধানসভা