বাবাকে পেটাত পুলিশ ছেলে, পচা-গলা দেহ উদ্ধারকে ঘিরে বাড়ছে রহস্য

0
64

হাবড়া: ছেলে পুলিশকর্মী। বৃদ্ধ বাবাকে মাঝেমধ্যেই মারধর করার অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে৷ অবশেষে ঘর থেকে মিলল বৃদ্ধ বাবার পচা-গলা দেহ। ঘটনার জেরে তীব্ চাঞ্চল্য হাবড়ার হাটথুবা এলাকায়। পুলিশ ছেলে ও তার স্ত্রীর দিকেই সন্দেহের তির বাসিন্দাদের৷

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত বৃদ্ধর নাম সত্যরঞ্জন দে (৬৫)। তাঁর ছেলে বান্টি দে পুলিশ কর্মী। এলাকার বাসিন্দারা আজ দুর্গন্ধ পায়। সেই সূত্রেই একজন প্রতিবেশী ঘরে উঁকি দিয়ে দেখেন, খাটের পাশে নিচে পড়ে রয়েছে বৃদ্ধর পচা-গলা দেহ। দেহের নিচের অংশে ইতিমধ্যে ধরেছে পচন৷ যা থেকে স্পষ্ট, অন্তত ২-৩ দিন আগে বৃদ্ধ মারা গিয়ে থাকতে পারেন৷ এদিকে পাশের বাড়িতেই থাকতেন পুলিশকর্মী ছেলে৷ স্বাভাবিকভাবে, প্রশ্ন উঠছে, যদি স্বাভাবিক মৃত্যুও হয়ে থাকে তাহলে পুলিশ ছেলে ও তার স্ত্রী কেনও কোনও আভাস পেলেন না? নাকি এর পিছনে রয়েছে অন্য কোনও রহস্য৷

স্থানীয় বাসিন্দা সুস্মিতা পাল বলেন, ‘‘পুলিশ ছেলে মাঝেমধ্যেই বাবাকে মারধর করত৷ অনেক চিৎকার চেঁচামেচি হত৷ আজ সকালে বৃদ্ধর ঘর থেকে একটা কুকুরকে বেরাতে দেখি৷ তখনই সন্দেহ হয়৷ কারণ, পচা দুর্গন্ধ নাকে আসছিল৷ কাছে গিয়ে দেখি, বৃদ্ধর পচা গলা দেহ পড়ে রয়েছে৷’’ স্থানীয় বাসিন্দারাই পুলিশে খবর দেন৷ খবর পেয়ে হাবড়া থানার পুলিশ এসে দেহ উদ্ধার করে নিয়ে যায়৷ খবর দেওয়া হয়েছে পুলিশ ছেলেকেও৷

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসেন স্থানীয় কাউন্সিলরও৷ তিনি প্রকৃত তদন্ত করে দোষীর শাস্তির দাবি জানান৷ তিনি বলেন, ‘‘দেহটিতে যেভাবে পচন ধরেছে তাতে স্পষ্ট ২-৩দিন আগে মারা গিয়ে থাকতে পারেন৷ স্বাভাবিকভাবে পাশের ঘরে থেকেও পুলিশ ছেলে ও বৌমা কোনওকিছুই আন্দাজ পেলেন না কেন?’’ পুলিশ জানিয়েছে তদন্তে সম্ভাব্য সবদিকই খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷ বৃদ্ধার ছেলে তথা পুলিশ কর্মী বান্টি দে’র অবশ্য কোনও প্রতিক্রিয়া এখনও পাওয়া যায়নি৷ তবে পুরো ঘটনাকে ঘিরে রহস্য ঘনীভূত হচ্ছে৷ উঠে আসছে একাধিক প্রশ্ন৷

আরও পড়ুন: বিচারপতির এক্তিয়ারের প্রশ্ন তুলে বিক্ষোভ, আদালতেও আমরা-ওরার ছায়া