পাবলিক সিমপ্যাথি কুড়োতেই কি সন্তান কোলে হাজিরা, রুজিরার কৌশল খতিয়ে দেখছে ইডি

0
9

কলকাতা: সিবিআইয়ের পর এবার ইডি৷ ক’দিন আগেই সদলবলে টিম নিয়ে তাঁর বাড়িতে পৌঁছে গিয়েছিলেন সিবিআইের দুঁদে অফিসারেরা৷ দু’দফায় জেরা পর্ব চলেছিল প্রায় সাত ঘণ্টা৷ এবার কয়লা পাচার কাণ্ডে ইডির তলব পেয়ে লক্ষ্মীবারে সিজিও কমপ্লেক্সে হাজিরা দিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা নারুলা বন্দ্যোপাধ্যায় (Rujira Narula Banerjee)। ইতিমধ্যেই তদন্তকারীদের চোখা চোখা প্রশ্নবানের সামনে রুজিরা৷ একই সঙ্গে এদিনের হাজিরায় রুজিরা কেন কোলের ছোট্ট সন্তানকে সঙ্গে করে নিয়ে এলেন, তাতে কি কৌশল রয়েছে তাও খতিয়ে দেখছেন গোয়েন্দারা৷

এক গোয়েন্দা কর্তার কথায়, ‘‘কয়লা পাচারের আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে রুজিরা ম্যাডামের যুক্ত থাকার স্বপক্ষে একাধিক নথি সামনে এসেছে৷ সেগুলি সত্যতা যাচাই করার জন্যই তাঁকে ডাকা হয়েছে৷ কিন্তু এমন সিরিয়াস জেরা পর্বে সব জেনে বুঝে ছোট্ট বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে আসার অর্থ পাবলিক সিমপ্যাথি কুড়োনো ছাড়া আর কি বা হতে পারে?’’ বস্তুত, ইতিমধ্যেই টিভির পর্দায় সন্তান কোলে রুজিরার ছবি দেখে এই বিষয়টি নিয়ে চর্চ্চা শুরু হয়েছে বিরোধী রাজনৈতিক শিবিরেও৷ একান্ত আলাপচারিতায় তাঁরা বলছেন, মানুষের সহানুভূতি কুড়োতেই অভিষেকই এই কৌশল বাতলে দিয়েছেন রুজিরাকে৷

বস্তুত, অতীতে বারে বারে ইডির দিল্লি অফিসের হাজিরা এড়িয়েছেন রুজিরা৷ সেই কারণে সম্প্রতি রুজিরার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল৷ অবশেষে এদিন প্রথমবারের জন্যে সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি দফতরে হাজিরা দিলেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের স্ত্রী রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। সকাল ১১টা ১০ নাগাদ সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে ইডি দফতরে নিজের সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে আসেন রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। চলছে জেরা পর্ব।

ইডি সূত্রের খবর, তাঁকে জেরা করতে ইতিমধ্যেই দিল্লি সদর দফতর থেকে কলকাতায় এসে পৌঁছেছেন ইডির দুঁদে আধিকারিকেরাও। তাঁরা জানার চেষ্টা করছেন, অভিষেক পত্নীর মোট ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টের সংখ্যা কটি? তার মধ্যে কতগুলি ভারতে রয়েছে৷ আর কতগুলি বিদেশে রয়েছে৷ বিদেশে অ্যাকাউন্ট থাকলে সেগুলি কবে এবং কার মাধ্যমে খোলা হয়েছে? জয়েন্ট অ্যাকাউন্ট কটি, কোথায় রয়েছে? অ্যাকাউন্টগুলি কে বা কারা পরিচালনা করেন? কয়লা পাচার কাণ্ড এবং ব্যাঙ্ক লেনদেনের বেশ কিছু সন্দেহজনক নথিও এদিন রুজিরার সামনে পেশ করা হচ্ছে বলে ইডি সূত্রের খবর৷

বস্তুত, কয়লা পাচার কাণ্ডে প্রধান অভিযুক্ত লালা ও এক মধ্যস্থতাকারীর মাধ্যমেই মোটা অঙ্কের টাকা রুজিরার (Rujira Narula Banerjee) দুটি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে লেনদেন হয়েছিল বলে সন্দেহ করছেন গোয়েন্দারা৷ আজকের জেরাই সেই বিষয়েই পুঙ্খানপুঙ্খ জেরা চলছে৷ যার নেতৃত্বে রয়েছেন ইডির এক মহিলা ডেপুটি ডিরেক্টর৷ জেরার সঙ্গেই তাঁরা খতিয়ে দেখছেন সন্তান কোলে রুজিরা হাজিরা দিতে আসার কৌশলও৷

আরও পড়ুন: বেছে বেছে ২৭৩ জনকেই কেন বাড়তি ১ নম্বর, প্রশ্ন বিচারপতির : TET Recruitment Scam