বিবর্তনে এক লাফে কয়েক ধাপ পেরিয়েছে নয়া ভ্যারিয়েন্ট, চিন্তার ভাঁজ বিশ্বজুড়ে

0
941

খাস খবর ডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত কোভিড ভাইরাসের সবথেকে ভয়াবহ ভ্যারিয়েন্ট। যার নাম দেওয়া হয়েছে, বি ১.১.৫২৯। বিজ্ঞানীরা এখনও নিশ্চিত নন যে কোনও প্রকার ভ্যাক্সিন দ্বারা ভ্যারিয়েন্টটিকে প্রতিরোধ করা যাবে কিনা। ফলে কড়াকড়ি পড়ে গিয়েছে বিশ্বজুড়ে।

আরও পড়ুন: ডেল্টায় কাজ করছে না কোভিশিল্ড, হুঁশিয়ারি গবেষকদের

বিশেষ করে দক্ষিণ আফ্রিকা আর তার প্রতিবেশী কোনও দেশগামী বিমানগুলি বাতিল করতে শুরু করেছে ব্রিটেন। অন্যদিকে সে দেশ থেকে আগত ভ্রমণার্থীদের কোয়ারান্টাইনে থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ভারতও এ বিষয়ে পিছিয়ে নেই। দেশের সকল সীমান্তে কঠোর নিয়ন্ত্রণ ঘোষণা করেছে কেন্দ্রীয় সরকার।

জেনেভায় এদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার একটি বৈঠকে বসার কথা। তার আগে WHO র মুখপাত্র জানাচ্ছেন, “ভ্যারিয়েন্টটির ১০০ সিকুয়েন্সের কথা জানা যাচ্ছে। তবে এর জন্য আরও গবেষণা প্রয়োজন। তার আগে এই বৈঠকে স্থির হবে ভ্যারিয়েন্টটিকে ‘ইন্টারেস্ট’ নাকী ‘কনসার্ন’, কোন শ্রেণীভুক্ত করা হবে।”

সম্প্রতি এক এক করে সামনে আসতে শুরু করেছে নতুন ভ্যারিয়েন্টের ভয়াবহতা। কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক রবি গুপ্তার কথায়, “বেটা শুধু ইমিউন সিস্টেমের পরিপন্থী ছিল। অন্যদিকে ডেল্টার সংক্রমণের ক্ষমতা বেশী। নতুন ভ্যারিয়েন্ট কিন্তু উভয় প্রকার ক্ষতিই করতে পারে।” দক্ষিণ আফ্রিকার সেন্টার ফর এপিডেমিক রেসপন্স অ্যান্ড ইনোভেশনের পরিচালক টুলিও ডি অলিভিয়েরা আবার জানান, “এই ভ্যারিয়েন্টের মিউটেশন আমাদের বিস্মিত করেছে। এটি যে কেবল অন্যান্য ভ্যারিয়েন্টের তুলনায় ভিন্ন, তা-ই নয়। বিবর্তনের হিসেব করতে বসলে এটি কয়েক ধাপ লাফ দিয়েছে।”

আরও পড়ুন: সাবধান, চলে এসেছে করোনার সবচেয়ে ভয়ঙ্কর ভ্যারিয়েন্ট, ছড়িয়ে পড়ছে দ্রুত

তবু এরপরেও দক্ষিণ আফ্রিকা এবং তার প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে একেবারে সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার বিষয়টিতে মোটেই সন্তুষ্ট হতে পারছে না ইউরোপীয় কমিশন। কমিশনের প্রধান আধিকারিক উরশুলা ভন ডেন জানান, বিষয়টি নিয়ে ভাবনাচিন্তা ইতিমধ্যেই শুরু হয়ে গিয়েছে। খুব দ্রুত কোনও সিদ্ধান্তে আসা হবে। দক্ষিণ আফ্রিকা সরকারের তরফে সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নালেদি পান্ডোরের মুখেও শোনা গিয়েছে একই কথা। জানান, ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করার উদ্দেশ্যে ব্রিটেনের সঙ্গে কথা বলবেন তারা।