সংক্রমণ ঠেকাতে ‘মূলেই বিনাশ’ করতে হবে করোনা ভাইরাসকে

0
177

নয়াদিল্লি: করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিধ্বস্ত গোটা বিশ্ব। একের পর এক দেশে ছড়িয়ে পড়ছে এই সংক্রমক ভাইরাস। হু হু করে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃতের সংখ্যাও। বিশ্বব্যাপী ১৮৭টি দেশে এই ভাইরাস জাল বিস্তার করেছে। এখনও পর্যন্ত এই ভাইরাসের প্রকোপে আক্রান্তের সংখ্যা ৩ লক্ষ ছুঁতে চলল। প্রায় ১৩ হাজার মানুষের মৃত্যু ঘটেছে। তবে এখনও পর্যন্ত এই রোগের কোনো টিকা বা ওষুধ বেরোয়নি। তাতেই চিন্তার ভাঁজ মানুষের কপালে

বিশ্ব বাজারে করোনা রুখতে যেসমস্ত ওষুধ পাওয়া যাচ্ছে তা করোনার প্রাথমিক পর্যায়ে সুস্থ করে তুলতে সক্ষম হলেও বেশি সময় গেলে তার আর কার্যকারিতা থাকে না। এই ভাইরাসের একটি আচরণমূলক টিকার সন্ধান করতে সক্ষম হয়েছে চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা। যা এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়া রোধ করতে সক্ষম, তবে নিরাময়ের জন্য কোনো টিকা এখনও বাজারে আসেনি। বিজ্ঞানীদের মতে, এখনও বছরখানেক সময় লাগবে তা বের করতে।

- Advertisement -

সেই কারণে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু)-র পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, যদি কেউ সংক্রমক অঞ্চলে চলে যান বা থাকেন এবং তাঁদের শুকনো কাশি, জ্বর ও শ্বাসকষ্টজনিত অসুবিধা হয় তৎক্ষণাৎ ডাক্তারের সঙ্গে যোগাযোগ করুন কিংবা হেল্পলাইন নম্বরে নিজের অসুবিধার কথা জানান। যত দ্রুত রোগটি ধরা যাবে তত নিরাময় হওয়ার সুযোগ থাকবে। এখানে সময়ই প্রধান অর্থ।

রবিবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার এক জরুরি বিষয়ক অনুষ্ঠানে ডা. মাইক রায়ান জানান, এই রোগের টিকা পাওয়া সম্ভব। তবে তা কমপক্ষে এক বছর সময় লাগবে।

করোনা ভাইরাস সংক্রান্ত পরীক্ষালব্ধ তথ্য থেকে পাওয়া গেছে যে, এই ভাইরাস খুব মারাত্মক নয়। তবে যাঁদের মধুমেয়, ক্যান্সার বা হৃদরোগের সমস্যা, কিডনির সমস্যা আছে তাঁদের জন্য এই রোগ বেশি ভয়ানক। এটি নিউমোনিয়া র মতো রোগও সৃষ্টি করতে পারে। যেখানে মানুষকে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়।

প্রধানত, সবসময় সতর্কতা অবলম্বন করুন। রাস্তা বা জনবহুল স্থানে হাঁচি বা কাশি থেকে বিরত থাকুন। হাঁচি বা কাশির সময় অবশ্যই রুমাল বা টিস্যু পেপার ব্যবহার করুন। এছাড়াও হাত, মুখ ঘন ঘন পরিষ্কার করা বাধ্যতামূলক। জন সমাবেশ এড়িয়ে যাওয়া। এছাড়াও এই পরিস্থিতিতে করমর্দন থেকে বিরত থাকুন। যাতে সহজে এই রোগ ছড়িয়ে না পড়ে।

ভারতে এই ভাইরাসের প্রকোপ দ্বিতীয় পর্যায়ে আছে। তবে এখন থেকেই এই ব্যাপারে জরুরি ভিত্তিতে রোখা না গেলে তা ভয়ানক চেহারা নেবে। দ্রুত তার ব্যবস্থা করতে হবে। সেই জন্য কঠোর হচ্ছে কেন্দ্র ও রাজ্য সরকার। দেশের বহু স্থানে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। লকডাউন করে দেওয়া হয়েছে বহু স্থান।